1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
করোনার সংক্রমণ ।। টাঙ্গাইলে লকডাউনে ‘লক’ তাঁতপল্লী - Amader Tangail 24
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০১:৩৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
কালিহাতীতে জয় পেলেন লতিফ সিদ্দিকীর ছোট ভাই আজাদ সিদ্দিকী সখিপুরে নিরাপত্তার দাবিতে এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন তিন প্রার্থীকে প্রকাশ্যে সমর্থন, নাগরপুর ভোটের মাঠে তোলপাড় বাসাইলে দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ধানকাটা শ্রমিকের মৃত্যু গোপালপুরে স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রীর মৃত্যু, স্বামী আটক বাসাইলে তামাক নিরোধ বিষয়ক মতবিনিময় সভা নাগরপুর আলিম মাদ্রাসার কেউ পাস করেনি। সখিপুরে এমপিকে আত্মার হুমকির প্রতিবাদে মানবন্ধন ও প্রতিবাদ সভা নাগরপুরে বিয়ে না দেওয়ায় অভিমানে ছেলের আত্মহত্যা গোপালপুরের পরিবহন শ্রমিকদের ডাটাবেজ বা নিবন্ধন তৈরি শুরু আজ ভয়াল ১৩ মে, টর্নেডোর আঘাত আজও ভুলেনি বাসাইলবাসী উল্লাপাড়ায় ৪ মাদ্রাসায় কোন শিক্ষার্থীই পাশ করেনি  ভূঞাপুরে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দায়ে দুই প্রার্থীকে জরিমানা! উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ঋণ খেলাপি দায়ে ইঞ্জিনিয়ার সোহরাব হোসেন ও সালাউদ্দিনের মনোনয়ন পত্র বাতিল

করোনার সংক্রমণ ।। টাঙ্গাইলে লকডাউনে ‘লক’ তাঁতপল্লী

সাদিয়া সিদ্দিকা
  • প্রকাশ : শনিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২১
  • ৬১৪ ভিউ

টাঙ্গাইল শহর থেকে সাত কিলোমিটার দূরে তাঁত সমৃদ্ধ গ্রাম পাথরাইল। সে গ্রামে প্রবেশ করলেই চারপাশ থেকে ভেসে আসতো তাঁত বুননের খট্ খট্ শব্দ। বিশেষ করে ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে রোজার আগ মূহূর্তে ভীষণ ব্যস্ত হয়ে উঠতেন তাঁতীরা। গত বছর করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে লকডাউন হওয়ায় বন্ধ রাখতে হয় তাঁত। তখন চরম ধস নামে এ ব্যবসায়। ক্ষতিগ্রস্ত হতে হয় অনেক শ্রমিক ও ব্যবসায়ীকে। চলতি বছর সে ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তারা। কিন্তু রোজার সামনে এসে আবার লকডাউনে পড়তে হয় তাদের। ব্যবসার ভরা মৌসুমে বন্ধ হয়ে যায় তাঁত। লকডাউনে একেবারে ‘লক’ হয়ে যায় তাঁতপল্লী।

সরেজমিনে পাথরাইল গিয়ে দেখা যায়, অধিকাংশ তাঁতঘর বন্ধ। কোনটি খোলা থাকলে তাঁত শ্রমিকরা পাশের ‘চকিতে’ ঘুমাচ্ছেন। পাথরাইল মেইন রোড থেকে একটু পূর্বদিকে এগিয়ে গেলে মলয় চন্দ্রের তাঁত ঘর। ঘরটি বন্ধ ছিল। তাকে দিয়ে তালা খুলে ভেতরে প্রবেশ করে দেখা যায় ধুলা-বালি জমে আছে তাঁতের সরঞ্জামজুড়ে। মাকড়সাও বাসা বেঁধেছে। নাতায় (কাপড় পেচোনোর কাঠের রোল) শাড়ি তৈরির কিছু অংশ রয়েছে। তাতে জমে আছে ধুলা। কাগজের ডিজাইন এলোমেলো পরে আছে। অগোছালো ঘরের ভেতরটা দেখেই বোঝা যায় দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে ঘরটি-বন্ধ রয়েছে তাঁত।
মলয় চন্দ্র জানান, তার ৫০ টি তাঁত ছিল। গত বছর করোনা সংক্রমণের ফলে লকডাউনের পর থেকে ধীরে ধীরে বন্ধ হতে থাকে তাঁত। এক বছরে তার ৪০ টি তাঁতই বন্ধ হয়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘এ বছর ঈদকে কেন্দ্র করে রোজার মধ্যে আবার সচল হওয়ার স্বপ্ন দেখছিলাম। কিন্তু আবার সেই করোনার আক্রমণ, আবার লকডাউন। সচল হওয়ার পরিবর্তে অচল হয়ে গেলাম।’ একই এলাকার আবুল ভুইয়া বলেন, ‘তাঁত ছাড়া অন্য কাজ পারি না। ৩৪ টি তাঁতের মধ্যে বর্তমানে ১৭ টি চালু আছে। বাকিগুলো বন্ধ হয়ে গেছে।’ সাহাপাড়া এলাকার যষ্ঠি সাহা বলেন, ‘আগে আমার দশটি তাঁত ছিল। করোনায় ক্ষতি হয়েছে। পুজি নেই। সবগুলো বিক্রি করতে হয়েছে। আমি এখন অন্যের তাঁতে শ্রমিক হিসেবে কাজ করছি।’
নিউ রাধাবল্লভ অ্যান্ড কোং -এর মালিক বাদল বসাক জানান, তিনি ব্যাংক ঋণ নিয়ে দোকান ও বাড়ি করেছেন। গত বছর থেকে করোনার কারণে তার ব্যবসায় ক্ষতি হচ্ছে। তিনি খুবই খারাপ অবস্থায় রয়েছেন। আয় নেই। অথচ ব্যাংকের ঋণ, সংসার খরচ চালাতে হচ্ছে। সামনে কি করবেন বুঝতে পারছেন না।

 

টাঙ্গাইল কুটির মালিক আব্দুর রাজ্জাক জানান, তার দীর্ঘদিনের পৈত্রিক ব্যবসা। প্রতি বছর তাঁতীদের শতকরা ৩০ ভাগ মজুরী ঈদের আগে দেয়া হয়। গত বছর তাদের সে মজুরী দেয়া সম্ভব হয়নি করোনার কারণে। এবার ব্যবসা করে তাদের পাওনা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু আবার লকডাউনে আয় বন্ধ হয়ে গেলো। গত বছর করোনার কারণে যাদের কাছে টাকা পাওনা ছিল তাদের মধ্যে অন্তত দশজন ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছে। এতে প্রায় ২০ লাখ টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছেন তিনি। এদিকে ঋণ নিয়ে এবার আবার ব্যবসা শুরু করেছিলেন। কিন্তু আবার লকডাউন। তিনি বলেন, ঋণের টাকা কিভাবে পরিশোধ করবো বুঝতে পারছি না। করোনার কারণে এ ব্যবসায় টিকে থাকাই সম্ভব হচ্ছে না।
মনমোহন বসাক অ্যাসন্স-এর মালিক চন্দন বসাক বলেন, দোকানে বাকি, সুতার দাম বাকি। সবকিছু কিনে খেতে হয়। অথচ উপার্জন বন্ধ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরেও যদি দোকান খোলার অনুমতি দেয়া হতো তাহলে অন্তত সংসার খরচ উঠানো যেতো।
পাথরাইল তাঁত ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রঘুনাথ বসাক বলেন, রোজার সময়ই তাঁতের মূল ব্যবসা। গত বছর করোনার কারণে প্রায় ৩০ ভাগ তাঁত একেবারে বন্ধ হয়ে গেছে। বিপুল পরিমাণ ক্ষতিগ্রস্ত হতে হয়েছে ব্যবসায়ীদের। এবার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে প্রস্তুতি চলছিল। এর মধ্যে আবার কারোনার থাবা, আবার লকডাউন। অনেক তাঁতী এ ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছে। এ শিল্পটা এখন ধ্বংসের পথে। এ অবস্থায় চলতে থাকলে টাঙ্গাইল শাড়ির ঐতিহ্য হারিয়ে যাবে।

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews