1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  3. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  4. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  5. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  6. atozlove9@gmail.com : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  7. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  8. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  9. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  10. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
খরগোশ পালনে স্বাবলম্বী মধুপুর গ্রামের নারীরা - Tangail News
রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:০০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
স্কুলে বেতন দিতে পারেনা কিন্তু প্রত্যেকের কাছেই মোবাইল ফোন…আতাউর রহমান খান এমপি ধনবাড়ী পৌর নির্বাচনে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বকল বিজয়ী এসিল্যান্ডের প্রচেষ্টায় জনবান্ধবে পরিণত নাগরপুর উপজেলা ভূমি অফিস ভূঞাপুুরে সাংবাদিকদের নবাগত ইউএনও’র মতবিনিময় ধনবাড়ী পৌর নির্বাচনে ইভিএমে ভোট গ্রহন চলছে বাসাইলে ঐতিহ্যবাহী পৌষসংক্রান্তি মেলা অনুষ্ঠিত নাগরপুরে সড়ক উন্নয়ন কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন নাগরপুরে রোটারী ক্লাবের উদ্যোগে শীতবস্ত্র কম্বল বিতরণ ফেসবুকের কল্যাণে এক যুগ পর পাগলী দূর্গা ফিরে পেল তার পরিবার আরও দাম বাড়ছে এলপি গ্যাসের বাসাইলে সরিষার মাঠে মধু সংগ্রহের ধুম পড়েছে ধনবাড়ীতে জিহাদী বইসহ জঙ্গি সদস্য গ্রেফতার বীরমুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে আওয়ামী সমর্থিত টাঙ্গাইল পৌরমেয়র প্রার্থীর মতবিনিময় সভা টাঙ্গাইলে আদিবাসী নারীকে গাছে বেধে নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত নাগরপুরে সরকারের উন্নয়ন শীর্ষক মত বিনিময় সভা

খরগোশ পালনে স্বাবলম্বী মধুপুর গ্রামের নারীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি
  • Update Time : রবিবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৬৬ Time View
Spread the love

টাঙ্গাইলে মধুপুর উপজেলার পিরোজপুর গ্রামের অর্ধশত হতদরিদ্র নারী সংসারের কাজের পাশাপাশি খরগোশ পালন করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। এই গ্রামের অনেক বাড়িতেই নারীরা খরগোশ পালন করছেন। এক সময় এই গ্রামের নারীরা হাঁস-মুরগি এবং গরু-ছাগল পালন করতেন। এখন এসবের পাশাপাশি খরগোশ পালনে লাভের মুখ দেখছেন বেশি। এতে বাড়তি আয়ের পথ খুঁজে পেয়েছেন এই গ্রামের হতদরিদ্র উদ্যমী প্রান্তিক নারীরা। তবে সরকারি সহযোগিতা পেলে ব্যাণিজ্যিকভাবে খরগোশ পালন করে দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখতে পারবেন বলে মনে করছেন তারা।

মধুপুর উপজেলার কুড়াগাছা ইউনিয়নের একটি গ্রামের নাম পিরোজপুর। মধুপুর শহর থেকে আট কিলোমিটার দূরে গ্রামটির অবস্থান। গ্রামের অধিকাংশ মানুষ কৃষি কাজের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আনারস, পেঁপে, আদা, হলুদ, কচু, সরিষা, ধান, পাট, আলু, কলা, সবজি এই গ্রামের মানুষের প্রধান অর্থকরী ফসল। কৃষি তাদের প্রাণ।

গরু-ছাগল এবং হাঁস-মুরগি পালনে গ্রামের নারীরা এগিয়ে। পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও কৃষি কাজে জড়িত। অন্যান্য কাজের পাশাপাশি তারা এখন খরগোশ পালনে সক্রিয় হয়ে উঠছেন। এই গ্রামের প্রায় অর্ধশত নারী নিজেদের সংসারের কাজের পাশাপাশি খরগোশ পালন করে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, পিরোজপুর গ্রামের প্রায় নারীরই রয়েছে ছোট-বড় মিলিয়ে ১৫-২০টি করে খরগোশ। তারা জানালেন, প্রতিটি মা খরগোশ ৪-৯টি পর্যন্ত বাচ্চা দিয়ে থাকে। বাড়িতে পাইকাররা এসে নগদ দামে কিনে নেন। নারীরা সকালে নিজেদের বাড়ির কাজ শেষে মাঠে গিয়ে ঘাস কেটে এনে খরগোশদের খাবার দেন।

নারীরা জানান, খরগোশ পালনের জন্য আলাদা ঘর প্রয়োজন। এ জন্য কাঠের ফালি দিয়ে বাক্স বানিয়ে তিনদিকে কাঠের বেড়া দিতে হয়। সামনের দিকে জালের নেট দিয়ে দরজা বানিয়ে খরগোশ পালন করা হয়। এতে সামনের দিক দিয়ে আলো-বাতাস ঢুকে ও ময়লা পরিষ্কার করতে সহজ হয়। দিনে ও রাতে কয়েকবার খাবার দিতে হয় এবং এই খরগোশ থাকার ঘর বা টং পরিষ্কার করতে হয় প্রতিদিন। খাবারের মধ্যে ঘাস অন্যতম। ঘাসের সঙ্গে ভাত ও ধানের কুড়া মিশিয়ে খাবার দিতে হয়। ছোট বাচ্চাগুলোকে আলাদা রাখতে হয়। যাতে বড় খরগোশের চাপে বা আঘাতে না মারা যায়।

প্রতিদিন ৪-৫ বার দুধ খাওয়াতে হয়। বাচ্চা দেখতে ইঁদুরের মতো। ২০-২৫ দিনের মধ্যে বাচ্চা বিক্রি করা যায়। প্রতিটি বাচ্চা ৫০-১০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা যায়। শীতকালে দাম কিছুটা কম থাকে।

খরগোশ পালনকারী আজিরন বেগম বর্তমানে ১৫টি বড় খরগোশ পালন করছেন। প্রতি মাসে তিনি ১৫-২০টি করে বাচ্চা বিক্রি করেন। এতে তার প্রতি মাসে দেড় হাজার টাকা বাড়তি আয় হয়। আর এই আয় দিয়ে তিনি তার কাপড়, নাতি-নাতিনদের পড়াশোনার খরচ চালান। এখন তার আর বাড়তি অর্থের জন্য চিন্তা করতে হয় না।

হনুফা বেগমের (৩৫) রয়েছে ১৬টি বড় মা খরগোশ। প্রতি মাসে খরগোশ বিক্রি করে দুই থেকে তিন হাজার টাকা আসে তার। নিজের খরচ মিটানোর পাশাপাশি ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার খরচ জোগাতে হিমশিম খেতে হয় না।

ফরিদা বেগম (৪০) খরগোশ পালন করে ছেলেমেয়েদের পড়াশোনা করিয়েছেন। বাড়িতে থাকার ঘর দিয়েছেন। স্বামীকে প্রতি মাসে ৩-৪ হাজার টাকা করে সাহায্য করেন। এভাবে শুধু আজিরন, নাজমা, হনুফা, ফরিদাই নন, এই গ্রামের অর্ধশত নারী এখন স্বাবলম্বী হয়েছেন।

তারা জানান, বর্তমানে পাইকার কম থাকার কারণে ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না। সরকারিভাবে কোনো ব্যবস্থা অথবা পৃষ্ঠপোষকতা পেলে তারা আরও এগিয়ে যেতে পারবেন- এমনটাই জানালেন এই গ্রামের নারীরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!