1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
ঘুরে আসুন টাঙ্গুয়ার হাওর থেকে - Amader Tangail 24
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:০৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন কালিহাতীতে মনোনয়ন জমা দিলেন যারা বাসাইলে প্রাণীসম্পদ প্রদর্শণী অনুষ্ঠিত সখিপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির ঈদপূনর্মিলনী বাতিঘর আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে উচ্চশিক্ষা বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত বাসাইলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন টাঙ্গাইলে সৃষ্টি একাডেমিক ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত বাসাইলে ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত উল্লাপাড়ায় ২ দিনব্যাপী মানবধর্ম মেলার উদ্বোধন  নাগরপুরে ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বাঙ্গালী সংস্কৃতি জাগ্রত হলে অসাম্প্রদায়িক চেতনা জাগ্রত হবে নাগরপুরে মঙ্গল শোভাযাত্রা উদ্বোধনের সময় বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী বাসাইলে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত আমাদের মূল লক্ষ্যই হলো হস্ত ও কুটির শিল্পকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া- বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী সখিপুরে একই মাতৃগর্ভে ৬ সন্তান সখিপুর উপজেলা হাসপাতালে সেবা নিতে আসা রোগীদের ঈদ আনন্দ সেবা সংঘের উদ্যোগে ঈদ সমগ্রী বিতরণ

ঘুরে আসুন টাঙ্গুয়ার হাওর থেকে

মুসলিম উদ্দিন আহমেদ
  • প্রকাশ : সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৪৮৮ ভিউ
টাঙ্গুয়ার হাওর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপার লীলা ভূমি। মেঘালয়ের কোল ঘেঁষে এই হাওরের জন্ম। পাহাড়ে মেঘগুলো আছড়ে পড়ছে। এই বৃষ্টি, আবার এই রোদ। সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা ও তাহেরপুর উপজেলায় এটি অবস্থিত। মেঘালয়ের সুবিশাল ও বিস্তৃত পাহাড়ের হাজারো ছড়া ও বেশ কিছু ঝর্ণা হল টাঙ্গুয়ার হাওরের পানির উৎস। শীতকালে এই হাওরে অনেক কান্দা বা পাড় জেগে উঠে। পুরো হাওর অনেকগুলি বিলে ভাগ হয়ে যায়। তখন শুধু বিলেই পানি থাকে । তবে বর্ষাকালে এই হাওর যেন এক বিশাল সমুদ্র। আর সেই সমুদ্রের উত্তর পাড়ে মাথা উচু করে দাঁড়িয়ে আছে ভারতের মেঘালয়ের বিশাল পাহাড়। শীতকালে এখানে প্রচুর পরিযায়ী পাখি ভিড় জমায়। এখানে অনেক দেশী পাখিও রয়েছে। নিয়মিত দেখা যায় পানকৌড়ি, বেগুনি কালেম, বালিহাঁস, শঙ্খচিল, বিভিন্ন প্রজাতির বক, সারস, পাতি কুট, সরালি হাঁস, ডাহুক ইত্যাদি। এছাড়া অন্যান্য বন্যপ্রানী ও জীববৈচিত্রে টাঙ্গুয়ার হাওর সমৃদ্ধ।
স্থানীয় ভাষায় টাঙ্গুয়াকে বলা হয়- নয় কুড়ি কান্দা, ছয় কুড়ি বিল বিশ্বের এক হাজার ৩১টি রামসার সাইটের মধ্যে টাঙ্গুয়া বাংলাদেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট। এ হাওর শুধু একটি জলমহাল বা মাছ প্রতিপালন, সংরক্ষণ ও আহরণেরই স্থান নয়। এটি একটি মাদার ফিশারী। এর একদিকে মেঘালয় পাহাড়। বাকি তিনদিকে দুইটি উপজেলা তাহিরপুর ও র্ধমপাশা। ভারতের মেঘালয়ের খাসিয়া, জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে সারি সারি হিজল-করচ শোভিত, পাখিদের কলকাকলি মুখরিত টাঙ্গুয়ার হাওর মাছ, পাখি এবং অন্যান্য জলজ প্রাণীর এক বিশাল অভয়াশ্রম। ৫১ টি বিল আর ৮৮ টি গ্রাম বেষ্টিত টাঙ্গুয়ার হাওরের আয়তন বর্ষায় ও হেমন্তে বাড়ে-কমে। হাওরের দৈর্ঘ্য ১১ কিলোমিটার এবং প্রস্থ সাত কিলোমিটার। বর্ষায় এর আয়তন দাঁড়ায় ২০ হাজার একরের বেশি আর হেমন্তে সাত হাজার একর। টাঙ্গুয়ার হাওর প্রকৃতির এক অকৃপণ দানে সমৃদ্ধ। দৃষ্টি নন্দন সারি সারি হিজল ও করচ বন হাওরকে আকর্ষনীয় করে তুলেছে। এ ছাড়াও নলখাগড়া, দুধিলতা, নীল শাপলা, পানিফল, শোলা, হেলেঞ্চা, শতমূলি, শীতলপাটি, স্বর্ণলতা, বনতুলসী ইত্যাদি সহ দু’শ প্রজাতিরও বেশী গাছগাছালী। এই হাওরকে প্রকৃতি তার অপরূপ রূপে সাজিয়েছে।
সুনামগঞ্জের সাহেববাজার ঘাট থেকে ইঞ্জিন নৌকা চারপাশের চৌহদ্দি ছাড়ানো সবুজ দেখে আপনি ভুল করে ভেবে বসতে পারেন যে নিউজিল্যান্ডের কোথাও আছেন। সুরমা নদীর ওপারেই মেঘালয়ের পাহাড় মেঘ কোলে নিয়ে অতিথির জন্য বসে আছে।
চোখের সামনে ঠিক যেন নিউজিল্যান্ডের ডেইরি ফার্মের গরুগুলো ঘাস খাচ্ছে। তাদের পেছনে বাঁক খেয়ে উঠে গেছে পাহাড়ের দেয়াল। যত দূর চোখ যায়, সবুজের মখমল। নিচে নীলচে পানি, পানির নিচে শেওলার অস্তিত্ব পরিষ্কার বোঝা যায়। নলখাগড়ার ডগা ভেসে ভেসে ঢেউয়ের দোলায় নাচে হাওরজুড়ে।
যাওয়ার পথে আনোয়ার পুর গ্রামে দেখা পাবেন পাথরের স্তূপ এর। এখানে পাথর ভাঙা হয়, হলদে বালির বিছানায় শুয়ে শুয়ে পাথরগুলো রোদ পোহাচ্ছে। যতই সময় যাবে, ধীরে ধীরে রং বদলে যাবে পানির। নীল থেকে কালো, কালো থেকে সবুজ, আবার গাঢ় নীল। এভাবে প্রায় ছয় ঘন্টা পর টাঙ্গুয়া হাওরে পৌঁছা যায়।
বর্ষা মৌসুমে গোটা টাঙ্গুয়ার পরিণত হয় ২০-২৫ ফুট জলের এক স্বচ্ছ অ্যাকুরিয়ামে। হঠাৎ করে কেউ দেখলে নির্দ্বিধায় বঙ্গোপসাগর ভেবে ভুল করবে। এই সেই টাঙ্গুয়ার হাওর, যেখানে জল আকাশের রং চুরি করে নীলের ভুবন সাজিয়েছে।
মেঘমালা অনেক নিচ দিয়ে উড়ে যায়, দূর থেকে দেখে মনে হবে পানিতে বুঝি তুলোর ভেলা ভাসছে। সীমাহীন এই হাওরে বর্ষাকালে চলে বিশাল ঢেউয়ের রাজত্ব। পানি এতই পরিষ্কার যে ২০ ফুট নিচের ঘাস, গাছ, লতাগুলো মনে হয় অ্যাকুরিয়ামে সাজানো। অচেনা এক পৃথিবী মনে হয় যখন দেখি কোনো রকম ভেলা বা জাহাজ ছাড়াই থইথই পানিতে পইপই ভাসছে ছোট ছোট গ্রাম।
পুরো হাওর গাছের সীমানা দিয়ে ঘেরা। সেই গাছও মাথাটুকু বাদে ডুবে আছে নীলের সমুদ্রে। এখানে বাতাস কখনো ক্লান্ত হয় না, এখানে আকাশের নিচে সাদা মেঘের বুক চিরে দাঁড়িয়ে আছে কচি পাহাড়, আর সেই পাহাড়ের কোলে নাচে উদ্দাম, উত্তাল, দুরন্ত সবুজ জ্যাকেট পরা নীল পানি, হাওরের পানি।
আরও দেখতে পারেন মেঘালয় ও জাদুকাটা নদীঃ
হাওর ছাড়াও মেঘালয়ের প্রাকৃতিক দৃশ্যগুলো অত্যন্ত মনোরোমতম ও সুন্দরতম দৃশ্যগুলির মধ্যে অন্যতম। মেঘালয় অর্থাৎ মেঘের বাড়ি নামটি আসলেই যথার্থ। সারাক্ষণ মেঘ এখানে খেলা করে। মুহুর্তে মুহুর্তে পরিবর্তন হয় তার রূপ। কখনো কালো মেঘে পাহাড় ঢাকা তুমুল বৃষ্টি একটু পর আবার সব পরিষ্কার। সাদা মেঘ পাহাড় চুড়াগুলিতে সারাক্ষনই নেচে বেড়ায়। জাদুকাটা নদীর বালুর সৈকত যেন প্রকৃতির আরেক মোহনীয় রূপ। চিক চিক হলুদ বালুর সাথে পরিষ্কার নীলচে পানির মিলন প্রকৃতিকে সাজিয়েছে অপরূপ সাজে। জাদুকাটা নদীর পানি খুবই আরামদায়ক ঠান্ডা ও শীতল। পানিতে নামলেই সুখের পরশে গা জুড়িয়ে যায়।
কিভাবে যাবেন ও কোথায় থাকবেনঃ
টাঙ্গাইল থেকে শরীফ পরিবহনের বাসে সকাল ৭টায় রওনা হবে নেত্রকোনার উদ্দেশ্যে। ভাড়া ৩০০ টাকা করে প্রতিজন। সকাল সাড়ে ১১টার মধ্যে নেত্রকোনা পৌঁছাবেন। সেখান থেকে সিএনজি চালিত অটোরিক্সা করে চলে যাবেন সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগরে। এখানে ভাড়া জনপ্রতি ২০০ টাকা করে। মধ্যনগর থেকে স্পীডবোটে ৩০০ টাকা করে ভাড়া এবং ট্রলারে ৫০ টাকা করে ভাড়া লাগবে। আপনাকে নিয়ে যাবে টাঙ্গুয়ার হাওরে। অথবা একই ভাড়ায় তাহিরপুরও যেতে পারবেন। সেখানে রয়েছে ইঞ্জন চালিত বড় নৌকা। রাত যাপনের জন্য বিছানা পত্র, টয়লেটসহ রয়েছে আধুনক সুবিধা। ভাড়া প্রতিদিন চার থেকে ছয় হাজার টাকা। খাবারের ব্যবস্থা রয়েছে তাহিরপুর ও ধর্মপাশাসহ আশেপাশের বিভিন্ন এলাকায়। তবে আগেই খাবারের অর্ডার করতে হবে। অথবা নিজেরাও প্রয়োজনীয় বাজারসদাই করে নেবেন। সঙ্গে তেমন কিছুই নিতে হবে না, তবে লাইফ জ্যাকেট থাকলে নিয়ে নিতে পারেন। হাওর ঘুরে রাতটা তাহিরপুর থানার ডাকবাংলোতে থাকতে পারেন। এছাড়াও সরকারী ব্যবস্থাপনায় ৩ কিঃ মিঃ উত্তর-পূর্বে টেকেরঘাট চুনাপাথর খনি প্রকল্পের রেস্ট হাউজে অবস্থান করা যায়।
তথ্য ও সূত্র সহযোগিতা : এক্সপ্লোর আওয়ার বাংলাদেশ

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews