1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
টাঙ্গাইলের চমচম স্বাদে-গন্ধে সেরাদের সেরা - Amader Tangail 24
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০১:৩৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
কালিহাতীতে জয় পেলেন লতিফ সিদ্দিকীর ছোট ভাই আজাদ সিদ্দিকী সখিপুরে নিরাপত্তার দাবিতে এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন তিন প্রার্থীকে প্রকাশ্যে সমর্থন, নাগরপুর ভোটের মাঠে তোলপাড় বাসাইলে দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ধানকাটা শ্রমিকের মৃত্যু গোপালপুরে স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রীর মৃত্যু, স্বামী আটক বাসাইলে তামাক নিরোধ বিষয়ক মতবিনিময় সভা নাগরপুর আলিম মাদ্রাসার কেউ পাস করেনি। সখিপুরে এমপিকে আত্মার হুমকির প্রতিবাদে মানবন্ধন ও প্রতিবাদ সভা নাগরপুরে বিয়ে না দেওয়ায় অভিমানে ছেলের আত্মহত্যা গোপালপুরের পরিবহন শ্রমিকদের ডাটাবেজ বা নিবন্ধন তৈরি শুরু আজ ভয়াল ১৩ মে, টর্নেডোর আঘাত আজও ভুলেনি বাসাইলবাসী উল্লাপাড়ায় ৪ মাদ্রাসায় কোন শিক্ষার্থীই পাশ করেনি  ভূঞাপুরে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দায়ে দুই প্রার্থীকে জরিমানা! উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ঋণ খেলাপি দায়ে ইঞ্জিনিয়ার সোহরাব হোসেন ও সালাউদ্দিনের মনোনয়ন পত্র বাতিল

টাঙ্গাইলের চমচম স্বাদে-গন্ধে সেরাদের সেরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশ : শুক্রবার, ৩ মে, ২০২৪
  • ১২৮ ভিউ

চমচমের কথা শুনলে কার না জিভে জল আসে,সেই চমচম যদি হয় টাঙ্গাইলের। তাহলে তো কথায় নেই।ছোট-বড় সকল বয়সী মানুষের পছন্দের তালিকায় থাকে টাঙ্গাইলের চমচম।কথাই আছে ‘চমচম, টমটম ও শাড়ি, এই তিনে টাঙ্গাইলের বাড়ি।’ টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচমের কথাতো জানে সবাই। কেবল নামেই নয়, আকৃতি আর স্বাদ-গন্ধেও এই মিষ্টি সেরাদের সেরা।ঐতিহ্য আর বাংলার লোক-সংস্কৃতি ইতিহাসের উত্তরাধিকার টাঙ্গাইল জেলা।

জানা যায়,টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ীর চমচমের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে আনুমানিক প্রায় ২০০ বছরের পুরোনো ইতিহাস। ইতিহাস বলছে- দশরথ গৌড় নামে এক ব্যক্তি ব্রিটিশ আমলে আসাম থেকে টাঙ্গাইলের যমুনা নদীর তীরবর্তী সদর উপজেলার পোড়াবাড়িতে আসেন। তিনি যমুনার পানি ও গরুর খাঁটি দুধ দিয়ে প্রথমে চমচম তৈরি শুরু করেন। পরে সেখানেই মিষ্টির ব্যবসা শুরু করেন তিনি। ধীরে ধীরে পোড়াবাড়িতে প্রায় অর্ধশত চমচম তৈরির কারখানা গড়ে ওঠে। এখন আর পোড়াবাড়ীর সে জৌলুস আর নেই। বর্তমানে টাঙ্গাইল মিষ্টিপট্টি হিসেবে খ্যাতি পাওয়া শহরের পাচঁআনী বাজরের মিষ্টির দোকানগুলোতেও চমচম তৈরি ও বিক্রি হচ্ছে। এখানকার প্রতিটি মিষ্টির দোকানেই এখন নির্ভেজাল পোড়াবাড়ির চমচম পাওয়া যায়। এই পাঁচআনি বাজারে প্রায় অর্ধশত মিষ্টির দোকান রয়েছে। শহরের বিভিন্ন স্থানেই এখন গড়ে উঠেছে চমচমের দোকান। চমচমের গড়ন অনেকটা লম্বাটে। হালকা আঁচে পোড় খাওয়া বলে রঙটা তার গাঢ় বাদামি। বাইরে থেকে দেখতে অনেকটা পোড়া ইটের মতো। বাইরেটা একটু শক্ত হলেও এর ভেতরের অংশ একেবারে নরম আর রসে টইটম্বুর। লালচে গোলাপি আভাযুক্ত ভেতরের নরম অংশের প্রতিটি কোষ কড়া মিষ্টিতে পূর্ণ। ঘন রস আর টাটকা ছানার গন্ধমাখা এ মিষ্টির স্বাদ অতুলনীয়। সুস্বাদু চমচম তৈরির মূল উপাদান দুধ, চিনি, পানি, সামান্য ময়দা ও এলাচ দানা।

বাংলাদেশ ছাড়াও বিভিন্ন দেশে এই পোড়াবাড়ির মিষ্টির সুনাম রয়েছে। বড় বড় মিষ্টির দোকানগুলোতে প্রতিদিন গড়ে পাঁচ থেকে ১০ মণ চমচম তৈরি হয়। বর্তমানে মিষ্টি শিল্পে টাঙ্গাইলের ঘোষ ও পাল সম্প্রদায় বংশানুক্রমিকভাবে নিয়োজিত আছে। তবে দে, নাগ ইত্যাদি উপাধিধারী অনেকেও মিষ্টান্ন তৈরিতে নিয়োজিত হয়েছেন।

টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসকের আবেদনের প্রেক্ষিতে সরকারের ভৌগলিক নিদের্শক ইউনিট ভৌগলিক নিদের্শক পণ্য (নিবন্ধন ও সুরক্ষা) আইন ২০১৩ অনুয়ায়ী চলতি বছরের (৯ জানুয়ারি) টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ীর চমচমকে জিআই পন্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এ স্বীকৃতি পাওয়ায় খুশি চমচম ব্যবসায়ীরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এই সুস্বাদু চমচম তৈরির কাজে জড়িত শত শত কারিগর কাজ করছেন। আগুনের তাপে তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে জ্বাল হচ্ছে চমচমের। নিজেদের তৈরি চমচম জিআই পন্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় কারিগররাও খুশি। বর্তমানে চমচম বিক্রি হচ্ছে মান ভেদে তিনশ’ থেকে চারশ’ টাকা কেজি দরে। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা লোকজন ছুটে আসেন মিষ্টির দোকানগুলোতে ঐতিহ্যবাহী চমচমের স্বাদ নিতে।

মিষ্টি কিনতে আসা সাগর বলেন,টাঙ্গাইলের মিষ্টি আমাদের ঐতিহ্য ও আমাদের গর্বের।টাঙ্গাইল পাঁচআনি বাজারে আসলে পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনদের জন্য মিষ্টি কিনে নিয়ে যায়।ছোট বড় সবাই টাঙ্গাইলের মিষ্টি পছন্দ করে।

আরেকজন মিষ্টি কিনতে আসা হরিপদ সরকার বলেন,টাঙ্গাইলের মিষ্টির সুনাম শুধু দেশ নই, সারাবিশ্বে ছড়িয়ে গেছে।আমি যেমন টাঙ্গাইলের মিষ্টির জন্য এসেছি।আমার মতো অনেকেই টাঙ্গাইলের মিষ্টি নিতে এসেছেন।এই মিষ্টির স্বাদ অন্যরকম,না খেলে বুঝা যাবে না।

মিষ্টি ব্যবসায়ী গৌরাঙ্গ কর্মকার বলেন,আমাদের টাঙ্গাইলের ঐতিহ্য পোড়াবাড়ির চমচম।প্রায় দুইশ বছর আগে থেকেই টাঙ্গাইলে পোড়াবাড়ির মিষ্টি তৈরি হয়ে থাকে।টাঙ্গাইলের মিষ্টির সুনাম দেশ ও দেশের বাহিরে রয়েছে। আমাদের পোড়াবাড়ীর চমচমে ভেজাল কোন কিছু যুক্ত করা হয় না। চমচম স্বাদ হওয়ার কারণ খাটি দুধ, ছানা ও ময়দা দিয়ে পোড়াবাড়ীর চমচম তৈরি করা হয় এজন্য এতো স্বাদ। প্রতিদিন দোকান গুলোতে ৫ থেকে ১০ মণ মিষ্টি তৈরি করা হয়।

মিষ্টি ব্যবসায়ী কালাচাঁদ বলেন,আমি ৪০-৪৫ বছর ধরে মিষ্টি ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছি।
টাঙ্গাইলের মিষ্টি স্বীকৃতি পাওয়ায় আমাদের জন্য ভালো হয়েছে।মিষ্টির স্বীকৃতি পাওয়ায় আমাদের সুনাম সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়বে।আমাদের মিষ্টি দেশের বাহিরে পাঠাতে পারবো।আমাদের মিষ্টি চাহিদা আরও বেড়ে যাবে।সেই সাথে আমাদের আগ্রহ বেড়ে যাবে।
সরকারের কাছে দাবি বিদেশে এই মিষ্টি রপ্তানি করার ব্যবস্থা করলে আমাদের বিক্রি আরও বৃদ্ধি পাবে। তখন আমরা আরও বেশি বেশি মিষ্টি তৈরি করতে পারবো।

টাঙ্গাইল জেলা রেস্তোরাঁ ও মিষ্টি ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি স্বপন ঘোষ বলেন,সারাদেশে এই পোড়াবাড়ির মিষ্টির সুনাম রয়েছে।জিআই স্বীকৃতি পাওয়ায় আমরা মিষ্টি ব্যবসায়ীরা অনেক খুশি। এই মিষ্টি যদি বিদেশে রপ্তানি করা যায় তাহলে আমাদের ব্যবসা আরও প্রসার পাবে। আমার বাবা মিষ্টির ব্যবসা শুরু করেন। বাবার হাত ধরেই মিষ্টির ব্যবসায় আশা। আমি করতেছি আমার ছেলেও এই পেশায় আছে।পোড়াবাড়ির চমচমের দীর্ঘদিনের ইতিহাস প্রায় দুইশ বছরের।টাঙ্গাইলের চমচম সুস্বাদু হওয়ার একটা কারণ হচ্ছে গাভীর দুধ গুলো চরাঞ্চল থেকে আসে।দুধ গুলো অনেক ভালো হয়। আর জলেরও একটা বিষয় আছে। দুধ, জল ও কারিগরের সমন্বয়েই এই মিষ্টির স্বাদ হয় অন্যরকম। মিষ্টিগুলো খুবই প্রাকৃতিক।এই মিষ্টি তৈরিতে কোনও ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয় না।

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews