1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
টাঙ্গাইলের লৌহজং নদী - Amader Tangail 24
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
সখিপুরে বাবা হত্যার দায়ে অভিযুক্ত ছেলে গ্রেফতার মির্জাপুরে অমর একুশে বই মেলা শুরু বাসাইলে তিন দিন ব্যাপী একুশে বই মেলার উদ্ধোধন পাপ মোচনে বংশাই নদীতে হাজারো পুণ্যার্থীর স্নান ঢাকাস্থ সখিপুর উপজেলা সমিতির মিলনমেলা অনুষ্ঠিত গোপালপুরে ২০১ গম্বুজ মসজিদ চত্বরে পুলিশ বক্স স্থাপন টাঙ্গাইলে শ্রমিক নেতা মোহাম্মদ আলীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভা সখিপুরে জমি বিরোধের জেরে হামলায় আহত ১ মির্জাপুরে পিকআপের চাপায় দাখিল পরীক্ষার্থী নিহত টাঙ্গাইলে পুষ্পস্তবকের ফুল ময়লার ট্রাকে!  টাঙ্গাইলে পাগলা কুকুরের আক্রমণে নারী ও শিশুসহ ১৬ জন আহত ভূঞাপুরে মাদরাসা শিক্ষক হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান মির্জাপুরে ট্রাক চালক হত্যার ঘটনায় ৬ জন গ্রেপ্তার ২ জনের স্বীকারোক্তি টাঙ্গাইলে ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচার মৃত্যু মির্জাপুরে পিকআপ-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে নারীসহ ৪ জন নিহত

টাঙ্গাইলের লৌহজং নদী

আখতার বানু (শেফালী)
  • প্রকাশ : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০
  • ১৯১৩ ভিউ
টাঙ্গাইলের লৌহজং নদী

টাঙ্গাইলের লৌহজং নদী

লেখকঃ আখতার বানু (শেফালী), ক্যালিফোর্নিয়া, আমেরিকা
টাঙ্গাইলের লৌহজং নদী পুনঃ উদ্ধারের কথা পড়ছি বা জানতে পারছি, টাংগাইল সিটিজেন ও জার্নালিস্ট গ্রুপ পড়ে। যদিও আমি দেশ ছেড়ে সূদর আমেরিকায়, তবুও দেশের খবর বিশেষ করে নিজের জেলার খবরে প্রাণে একটা চাঞ্চল্য জাগে।মনে হয় আরে এতে আমারি সম্পদ আমারি জিনিস এতো আমারি নদী ছিলো। লৌহজং নদীর কথা শুনে মনে পড়ে গেলো আমার ছেলে বেলার কথা। আমি যখন কার কথা লিখছি আমার মনে হয় এই নদী উদ্ধারে যারা কাজ করছে তাদের কারো কারো তখন জন্মও হয় নাই। তখন সময় মনে হয় ১৯৫৮ থেকে ৭০।আমাদের গ্রাম ছিলো পাথরাইল, বাজিতপুরের পর মংগলহোড়। আমরা ছোট বেলা বর্ষাকালে নৌকা দিয়ে টাংগাইল আসতাম। আমি তখন বিন্দু বাসিনী গার্সল সকুলে ক্লাশ থ্রীতে ভর্তি হয়েছি।আমরা আমাদের বাড়ীর ঘাট থেকে আমাদের নিজস্ব প্রাইভেট নৌকায় টাংগাইল আসতাম। আমাদের নৌকা ভ্রমনের আনন্দ নাই বর্নণা করি, কেবল লৌহজং নদী নিয়েই লিখি।
আমাদের গ্রামের পর চিনামোড়ার মোড়।মোড় পার হলেই চোখে পড়তো উঁচু অলোয়ার মঠ্।মঠ্ চোখে পড়তেই আমাদের আর নৌকার ছই এর নীচে বড়রা আটকে রাখতে পারতো না।কারন সামনেই কাগ মারীর পুল। কাগমারী পুলের একটু আগে থেকে আমাদের আনন্দ শুরু হতো।আমরা পুলের নীচে নৌকা ঢুকার আগেই আমার চাচাতো ভাই বোনেরা সবাই নৌকার বাইরে এসে সমস্বরে টা টু টা টু আওয়াজ শুরু

টাঙ্গাইলের লৌহজং নদী

উচ্ছল, চঞ্চল স্রোতস্বিনী, উপচে পরা পানিতে ভরা চির যৌবনা লৌহজং নদী। তার ঘাটে বাঁধা মাস্তুল তোলা রং বেরংগের পাল তোলা বড় বড় মহাজনী নৌকা,বড় বড় পানসী নৌকা ও বজড়া গুলির মাস্তুলের মাথায় পত্পত্ করে উড়তো রং বেরংগের পতাকা।।তার কোনটা বোঝাই পাট। কোনোটা ভরা নারিকেল, কোনটা বোঝাই শস্য।কোনোটা বোঝাই টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ী।দেশ বিভাগের আগে টাংগাইলের তাঁতের শাড়ীর হাট বসতো কোলকাতায়। আরো কতো কি।টাংগাইল আসার পথে দেখতাম একটু দুরে দুরে মাঝিদের মাঝ ধরার খরা। মাঝিরা একটু পর পর খরা তুলছে তাতে ভর্তি রুপালী মাঝের ঝাঁক লাফাচ্ছে।আগে তো সড়ক পথ যাতায়াতের কোনো ব্যবস্হা ছিলো না। নৌপথেই বেশীর ভাগ ব্যবসা বনিজ্য হতো।এজন্য কোন না নদীকে কেন্দ্র গড়ে উঠতো লোকালয় ব্যবসা বানিজ্য, শহর। ঠিক এই ভাবেই লোহজং নদীকে ঘিরে গড়ে উঠেছিলো টাঙ্গাইল শহর। প্রবাদ আছে”, টম টম চম চম আর তাঁতের শাড়ী, এই তিন নিয়ে টাঙ্গাইলের বাড়ী”। লৌহজং নদীটি হলো যমুনা নদীর একটি শাখা নদী। নদীর তীরে একুলে হাঁকডাক লোকজন,কোন নৌকা কুলে ভিড়তেছে, কোনো নৌকা ছেড়ে যাচ্ছে। টাঙ্গাইল আগে পিতল কাঁসার জিনিষের জন্যও বিখ্যাত ছিলো। এসব জিনিস পত্র নৌপথেই এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নেওয়া হতো।নদীর শহরের পাশে ছিলো বিশাল পার্ক।পার্কের যে পাশে নদী ছিলো সেই নদীর পাড়ে ছিলো শতবর্ষজিবী বড় বড় গাছ। এই সবগাছ নদীর পাড়কে ছায়া দিয়ে মায়া দিয়ে ঢেকে রাখতো।নদীর অপর পাড়ে ছিলো বিস্তীর্ণ শস্য ক্ষেত।তারপরেই ছিলো ছবির মতো সমৃদ্ধ দিঘুলিয়া গ্রাম।কোনো পন্য বোঝাই নৌকা ঘাট ছেড়ে যাচ্ছে কোনটা আবার প্রয়োজনীয় পণ্যের পসরা নিয়ে কুলে ভিড়ছে। আমরা নৌকার বাইরে এসে এই কর্ম যজ্ঞ মুগ্ধ হয়ে দেখতাম।বাতাসে ছলছল করতো নদীর পানি।পানির ছোট ছোট ঢেউয়ের উপরে সূর্যের কিরন পড়ে সোনার মতো ঝিলিক দিতো।এখনের কেউ ঐ দৃশ্য কল্পনাও করতে পারবেনা।মাঝে মাঝে বিকালে পার্কে আমরা বেড়াতে যেতাম, তখন দেখতাম হঠাৎ কতগুলি রং বেরংগের ছিপ নৌকা, তাতে বিচিত্র রংবেরংগের পোশাক পরা মানুষ তারা ঐ ছিপ্ নৌকা দিয়ে ঢোল বাজিয়ে বৌঠা চালিয়ে তীর বেগে কাগমারীর দিক থেকে এসে অর্থাৎ বাম দিক দিয়ে লৌহ জং নদীতে ঢুকে ডান দিক দিয়ে মূহুর্তেই বেড়িয়ে যেতো এটা ছিলো নৌকা বাইচের প্রতিযোগীতা। কি আনন্দ যে পেতাম সেই নৌকা বাইচ দেখে,। এখন কতো কিছুই না দেখি, এখনের কোনো কিছুর সাথেই সেই আনন্দের তুলনা হয় না। তাই ভাবি কালের গর্ভে আমাদের অতীত ঐতিহ্য হারিয়ে গেছে,।গত বছর দেশে গিয়ে সন্তোষ বেড়াতে গিয়ে দেখলাম আবর্জনা,আগাছায় ভরা লৌহজং নদীর জীর্ন শীর্ন খালের মতো রুপ।

আমরা আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য ধরে রাখতে পারি নাই কিছুই। নতুন করে লোহজং নদীকে উদ্ধার করার সকলের সম্মিলিত চেষ্টার প্রতি রইলো অকুন্ঠ সমর্থন।
আবার যেনো আমাদের পরবর্তি প্রজ্ন্ম বলতে পারে,
নদী,চর,খাল, বিল, গজারীর বন
টাংগাইল শাড়ী তার গরবের ধন।

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews