1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
দেশে চীনা টিকার ট্রায়াল অনিশ্চিত - amadertangail24.com - Amader Tangail 24
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৩৪ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
পাপ মোচনে বংশাই নদীতে হাজারো পুণ্যার্থীর স্নান ঢাকাস্থ সখিপুর উপজেলা সমিতির মিলনমেলা অনুষ্ঠিত গোপালপুরে ২০১ গম্বুজ মসজিদ চত্বরে পুলিশ বক্স স্থাপন টাঙ্গাইলে শ্রমিক নেতা মোহাম্মদ আলীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভা সখিপুরে জমি বিরোধের জেরে হামলায় আহত ১ মির্জাপুরে পিকআপের চাপায় দাখিল পরীক্ষার্থী নিহত টাঙ্গাইলে পুষ্পস্তবকের ফুল ময়লার ট্রাকে!  টাঙ্গাইলে পাগলা কুকুরের আক্রমণে নারী ও শিশুসহ ১৬ জন আহত ভূঞাপুরে মাদরাসা শিক্ষক হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান মির্জাপুরে ট্রাক চালক হত্যার ঘটনায় ৬ জন গ্রেপ্তার ২ জনের স্বীকারোক্তি টাঙ্গাইলে ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচার মৃত্যু মির্জাপুরে পিকআপ-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে নারীসহ ৪ জন নিহত টাঙ্গাইলে তারুণ্যের মেলা অনুষ্ঠিত টাঙ্গাইলে পাঁচ দিনব্যাপী বইমেলা শুরু মির্জাপুরে মহাসড়কে ডাকাতদলের হামলায় ট্রাকচালক নিহত

দেশে চীনা টিকার ট্রায়াল অনিশ্চিত – amadertangail24.com

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ৮১৮ ভিউ
ছবিটি প্রতীকী

দেশে চীনা টিকার ট্রায়াল বা পরীক্ষামূলক প্রয়োগ নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশকে (আইসিডিডিআরবি) চীন থেকে টিকা আনার অনুমোদন দেয়নি ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। ট্রায়ালের ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আগ্রহ কম দেখা যাচ্ছে। তবে অন্য দেশের উদ্ভাবিত টিকা পাওয়ার ব্যাপারে সরকার কাজ শুরু করেছে।

করোনা প্রতিরোধে দেশে টিকার ট্রায়াল, টিকা উৎপাদন এবং বিদেশ থেকে টিকা আনা নিয়ে আলোচনা চলছে তিন মাস ধরে। ইতিমধ্যে ভারতের গণমাধ্যমে বাংলাদেশে চীনা টিকার ট্রায়াল বিষয়ে সমালোচনামূলক প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে। ভারত টিকা উদ্ভাবনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে, পাশাপাশি বিপুল সংখ্যায় টিকা উৎপাদনেরও প্রস্তুতি নিয়েছে। অন্যদিকে জুন মাসের শেষ দিকে সরকারের একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা টিকার ট্রায়াল বিষয়ে প্রতিবেদন করার সময় গণমাধ্যমকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তিনি ভারত ও চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের বিষয়টি বিবেচনায় রাখতে বলেছিলেন। এ থেকে অনেকেরই মনে হয়েছে, টিকার পেছনে বৈশ্বিক রাজনীতি থাকলেও থাকতে পারে।

চীনের বেসরকারি কোম্পানি সিনোভেকের টিকার তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে আইসিডিডিআরবি। আইসিডিডিআরবি ইতিমধ্যে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড রিসার্চ কাউন্সিলের (বিএমআরসি) কাছ থেকে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের নীতিগত অনুমোদন পেয়েছে। কিন্তু ট্রায়াল পরিচালনার জন্য এই অনুমোদন যথেষ্ট নয় বলে বিভিন্ন স্তরের সরকারি কর্মকর্তারা গণমাধ্যমে বলেছেন।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর, আইসিডিডিআরবি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য বিএমআরসি ও ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অনুমোদনই যথেষ্ট। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা সরকারের অন্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের প্রয়োজন হয় না। আইসিডিডিআরবি এর আগে কলেরার টিকার ট্রায়াল করেছে। তখন মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের দরকার হয়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের চেয়ারম্যান শীতেস চন্দ্র বাছার বলেন, ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য বিএমআরসি ও ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অনুমোদনই যথেষ্ট বলে জানতাম।’

দেশে টিকার আলোচনা

৭ মে টিকার আলোচনা প্রথম গণমাধ্যমে প্রকাশ করেন ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান। ওই দিন অধিদপ্তরে আইসিডিডিআরবি, ওষুধ কোম্পানি ইনসেপটা ও পপুলারের প্রতিনিধিদের সঙ্গে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সভা হয়েছিল। সভা শেষে মহাপরিচালক গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বা চীনের টিকার ট্রায়ালের ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। দেশের দুটি ওষুধ কোম্পানির মাসে এক কোটি টিকা উৎপাদনের ক্ষমতা আছে। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটও টিকা তৈরি করবে। ভারত থেকে টিকা আনার ব্যাপারেও যোগাযোগ করা হচ্ছে।

সূত্র বলছে, ওই আলোচনার পর আইসিডিডিআরবি কাগজপত্র তৈরি করে বিএমআরসি ও ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে জমা দেয়।

এরপর ২৬ জুন বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরাম আয়োজিত ‘বাংলাদেশে করোনা: ছয় মাসের পর্যবেক্ষণ’ শীর্ষক অনলাইন সেমিনারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ চীনা টিকার ট্রায়াল আইসিডিডিআরবি করতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন।

বিএমআরসি ১৯ জুলাই আইসিডিডিআরবিকে টিকা ট্রায়াল করার নীতিগত অনুমোদন দেয়। এর পরদিন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, টিকার ট্রায়াল দুই রাষ্ট্রের বিষয় এবং তাতে সিদ্ধান্ত নিতে সময় লাগে। তিনি আরও বলেছিলেন, করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সঙ্গে ট্রায়াল বিষয়ে আলোচনা করা হবে। তবে গতকাল বুধবার পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি।

কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের কিছু জানানো হয়নি। কমিটি এ বিষয়ে কিছু জানে না।’ মোহাম্মদ সহিদুল্লা বিএমআরসির নীতিবিষয়ক কমিটির সদস্য।

অন্যদিকে দুই দিন আগে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান বিবিসিকে বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে চীন সরকার বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না জানানোর কারণে তা নিয়ে কোনো আলোচনা বা অগ্রগতি নেই।

টিকা নিয়ে সাধারণ মানুষের আগ্রহ আছে। অনেকে মনে করেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধের স্থায়ী সমাধান হতে পারে টিকা। আইসিডিডিআরবি এখন কী করছে, তা গতকাল সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে জানতে চান এই প্রতিবেদক। রাতে আইসিডিডিআরবি বলেছে, ‘নো কমেন্ট’। তারা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চায় না।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর কেন আইসিডিডিআরবিকে অনুমোদন দিচ্ছে না—এই প্রশ্নের উত্তরে অধিদপ্তরের পরিচালক মোহাম্মদ সালাউদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, এটি দুটি দেশের বিষয়। মন্ত্রণালয়ের সম্মতি না পেলে অধিদপ্তর অনুমোদন দিতে পারবে না।

আগের কোনো ট্রায়ালে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন লাগেনি। এখন লাগবে কেন জানতে চাইলে মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, ‘এখন জনস্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা চলছে, মহামারি পরিস্থিতি চলছে, তাই মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন দরকার।’

মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের বিষয়ে জানতে স্বাস্থ্যসচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগ) মো. আলী নূরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, টিকার ট্রায়ালের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বিষয় জড়িত। সুতরাং এ ব্যাপারে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন ওষুধ প্রযুক্তিবিদ প্রথম আলোকে বলেছেন, ট্রায়াল নিয়ে বিশ্বের কোথায় কী হচ্ছে, তার ওপর নজর রাখছেন বিজ্ঞানীরা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান। ট্রায়ালের ব্যাপারে সরকারের অবস্থান দ্রুত স্পষ্ট করা দরকার। তা না হলে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে ভবিষ্যতের বৈজ্ঞানিক গবেষণার ওপর।

টিকা আনার উদ্যোগ

সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, নিরাপদ ও কার্যকর টিকা উদ্ভাবন হলে সরকার সেই টিকা দেশের মানুষের জন্য আনার উদ্যোগ নিয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, গ্যাভি (গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমুনাইজেশন) ও আরও একাধিক আন্তর্জাতিক সংস্থা টিকার মজুত গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে। যে টিকাই প্রথম বাজারে আসুক না কেন, তার একটি অংশ নিম্ন ও নিম্নমধ্যম আয়ের দেশগুলোর মানুষের জন্য বরাদ্দ করার আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টা আছে। এই উদ্যোগের নাম ‘কোভেক্স ফ্যাসিলিটি’।

৯ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে কোভেক্স ফ্যাসিলিটিতে করোনার টিকার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করে আবেদন করে। ২১ জুলাই কোভেক্স ফ্যাসিলিটি অনলাইনে একটি বৈশ্বিক সম্মেলনের আয়োজন করে। তাতে অংশ নেয় বাংলাদেশ। সম্মেলনে সিদ্ধান্ত হয়েছে, নিম্ন ও নিম্নমধ্যম আয়ের দেশগুলোতে করোনা মোকাবিলায় সম্মুখসারির কর্মী, ৬৫ বছরের বেশি বয়সী মানুষ এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগে ভুগছে এমন মানুষদের জন্য আগে টিকার ব্যবস্থা করা হবে। এদের সংখ্যা বাংলাদেশের জনসংখ্যার ২৩ শতাংশ। টিকা পাওয়ার প্রথম ছয় মাসে এদের টিকা দেওয়া হবে। এরপর টিকা পাওয়া সাপেক্ষে জনগোষ্ঠীর অন্যরা টিকা পাবে।

সরকারের মাতৃ ও শিশুস্বাস্থ্যসেবা কর্মসূচির লাইন ডিরেক্টর মো. শামসুল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা যেন দ্রুত বেশি সংখ্যায় টিকা আনতে পারি, তার জন্য সম্ভাব্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

সূত্রঃ প্রথম আলো

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews