1. [email protected] : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. [email protected] : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. [email protected] : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. [email protected] : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. [email protected] : arnob alamin : arnob alamin
  6. [email protected] : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. [email protected] : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. [email protected] : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  9. [email protected] : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. [email protected] : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. [email protected] : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. [email protected] : sheful : Habibullah Sheful
পুঁটির মাছজীবন - আখতার বানু শেফালি - Amader Tangail 24
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৪৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
অবসর নয়, টি-টোয়েন্টি দল থেকে ‘৬’ মাসের বিরতিতে তামিম বাসাইলে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও সামাজিক সমস্যা নিরসন শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত বাসাইলে সাবেক সাংসদ অনুপম শাহজাহান জয় এর শীতবস্ত্র বিতরণ টিভিতে আজকে খেলা গোপালপুরে ইউপি নির্বাচন উপলক্ষে আইন শৃংখলা সভা অনুষ্ঠিত মধুপুরে মৎস ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত সখীপুরে স্বামীর আড়াই লাখ টাকা স্বর্ণ অলংকার নিয়ে স্ত্রী উধাও মধুপুর শিল্প ও বণিক সমিতির পক্ষ থেকে একলক্ষ টাকার  চেক প্রদান কালিহাতীতে অটো উল্টে নদীতে পড়ে চালক নিহত সখীপুরে দুই ইটভাটার মালিককে ৩ লাখ টাকা জরিমানা বাসাইলে অবৈধ ড্রেজার মেশিন জব্দ নাহিদুলের স্পিন ভেলকিতে ৯৫ রানে অল-আউট বরিশাল নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান শামীম আল মামুনকে সংবর্ধনা সখীপুরে গভীর রাতে কবর খুঁড়ে ৪ কঙ্কাল চুরি কালিহাতীতে বিদ্যুতায়িতের ফলে হার্ট অ্যাটাকে বেকু চালকের মৃত্যু

পুঁটির মাছজীবন – আখতার বানু শেফালি

সাহিত্য
  • প্রকাশ : রবিবার, ২৩ মে, ২০২১
  • ২৮৬ ভিউ
পুৃঁটির মাছজীবন - আখতার বানু শেফালি
Spread the love

পুঁটির মাছজীবন

এখনো বুকটা ধড়ফড় করছে পুঁটির, আর একটু হলেই রাক্ষুসে শৈলমাছটার পেটে চলে গিয়েছিল সে।
এই পুকরটায় আগে কিযে শান্তি ছিলো! সবাই একসাথে মিলে মিশে বসবাস করতো। এই শোলমাছটা একঘন বর্ষা বৃষ্টির রাতে কি করে যেন এই পুকুরে এলো, তারপর থেকেই দৌড়ের উপর আছে পুঁটি, আর পুঁটির মতো অন্যসব ছোট মাছেরা।
পুকুরের কিনারে সজনে গাছটার ছায়ার নীচে থাকতে পুটি নিরাপদ বোধ করে, কারণ এই দিকটায় শৈলমাছের যাতায়াত কম। পুকুরের এই কর্নারটা পুঁটির দারুন পছন্দ। যখন সজনে ফুল ফুটে, সজনে ফুলের মিষ্টি গন্ধে পুটি বুঁদ হয়ে থাকে,সজনো গাছের চিরল পাতার ছায়ায় কি যেন একটা মায়া মায়া ভাব আছে। তাছাড়া সজনে ফুলের ছায়ায় মৌরালা মাছের সাথে হুটোপুটি খেলতে দারুন ভালো লাগে তার। একটু বেলা হলে সজনে গাছের তলা দিয়ে ছোট ছেলেমেয়েরা বই খাতা হাতে নিয়ে স্কুলে যায়, পুটি পানি থেকে মাথা উঁচু করে দেখে তাদের,তখন তারও বই খাতা নিয়ে স্কুলে যেতে ইচ্ছে জাগে মনে, আচ্ছা মাছেদের জন্য স্কুল নেই কেন?কাকে জিজ্ঞেস করবে পুঁটি, সে ছোট বলে সবাই তার দিকে তেড়ে আসে,মা বেঁচে থাকলে জানা যেত, মা- ই একমাত্র সেই মাছ,যে মাছ সব জানতো। পাবদা আসে তার দাঁড়ি ভাসিয়ে, কিগো পুঁটি বেঁচে বর্তে যে আছো এটাই বড়কথা, অনেকেই তো সরাসরি শৈলের পেটে চলে যাচ্ছে। পুঁটি মুখ ফুলিয়ে থাকে বেশি কথা বলে না। বেশি কথা বলে একবার বেলে মাছের কাছে বিপদে পড়ছিলো, হা করে গিলতে এসেছিলো বেলে, কোনমতে কেরিকেটে রক্ষা পেয়েছিল সে যাত্রা। মাছদের বিপদ পায়ে পায়ে। কয়েকদিন আগে একটা রাক্ষুসে মাছ এসেছে জানো নাকি? পুঁটি চুপ করে থাকে সে জানে না। পাবদা বলে, সাবধানে থেকো সে এসেছে ভিন দেশ আফ্রিকা থেকে সে শৌল মাছের মতো নয়, তার মনে দয়া মায়া বলতে কিছু নাই। সাবার করে ফেলছে পুকুরের সব মাছ। তার খালি খিদা আর খিদা। পুঁটি কোনমতে বলে,
—তার কি দাঁড়ি আছে?
—- আছে আছে তারও আমার মতো দাঁড়ি আছে।
শুনে ভয়ে পুঁটির গায়ের আঁশ দাঁড়িয়ে গেলো, তার মাকে গপ করে খেয়েছিলো যে বোয়ালটা তারও দাঁড়ি ছিলো। পাবদা বেশ রোমান্টিক, কিন্তু ঐ দাঁড়ির জন্য তাকে অনেক ভয় পায় পুঁটি। হঠাৎ হৈচৈ। পুঁটি তাকিয়ে দেখে পাবদা নাই আর একটা বিরাট হা তার দিকেই এগিয়ে আসছে, প্রাণপণে এক লাফ দিয়ে ভুলে ডাঙায় এসে পড়ে পুটি। ডাঙায় কি আর মাছ বেঁচে থাকতে পারে? ছটফট করে লাফাতে লাফাতে আবার পানিতে এসে পড়লো পুঁটি, ততক্ষণে তার শরীরে অক্সিজেনের ঘাটতি হয়ে গেছে, সে চিৎ হয়ে পানিতে পেট ফুলিয়ে ভাসতে লাগলো। ভাসতে ভাসতে পুঁটির মনে হলো মানুষদের হয়তো মাছের মতো এতো বিপদ নাই,ছোট ছোট ছেলেরা মাঝে মাঝেই ছিপ ফেলে পুকুরে, সে ছিপের খাবার খায় না। সে পুরোপুরি নিরামিষ ভোজি হয়ে গেছে। কতো কষ্টে যে বেঁচে আছে পুঁটি! একদিন এক জেলে পুকুরে জাল টেনে সব বড় মাছ ধরে নিয়ে গেলো,ছোট মাছদের আনন্দ দেখে কে? পুঁটি তার সই খলসেকে সাথে নিয়ে গলাগলি ধরে সারা পুকুর ঘুরে ঘুরে সব মাছেদের সাথে দেখা করতে লাগলো। কিন্তু কপালে সুখ সইলো না পুঁটির। একদিন খুব বৃষ্টি হওয়াতে পুকুর তলিয়ে গেলো বৃষ্টির পানিতে, সেই সুযোগে পাশের পুরানো পুকুর থেকে এক বড় গজার এসে ঝুপ করে পড়লো পুঁটিদের পুকুরে। তারপর থেকেই সবাই দৌড়ের উপর আছে,শান্তি নাই মাছ জীবনেও শান্তি নাই।
আখতার বানু শেফালী

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!