1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. atozlove9@gmail.com : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
বাসাইলে ঐতিহ্যবাহী ডুবের মেলা অনুষ্ঠিত - Amader Tangail 24
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৭:১৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
সখিপুরে স্বর্ণকার পট্টি সহ ৪৪ মণ্ডপের প্রতিমা বির্সজনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গাপূজা গোপালপুরে বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালিত গোপালপুরের নগদাশিমলা ইউপি উপনির্বাচনে নৌকার মাঝি সোহেল টিভিতে আজকের খেলা বাসাইলে বিভিন্ন পূজামণ্ডপে পুলিশ প্রশাসনের উপহারসামগ্রী বিতরণ ভূঞাপুরে শারদীয় দূর্গোৎসব পরিদর্শনে জেলা প্রশাসকের লক্ষ টাকার অনুদান গোপালপুর জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উদযাপন গোপালপুরে বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করেন এমপি ছোট মনি ট্রেনের ধাক্কায় আহত ইজিবাইক চালকের মৃত্যু বিএনপি নেতা রশিদের মৃত্যু বার্ষিকীতে স্মরন সভা দোয়া মাহফিল মির্জাপুর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের এমপির সাথে স্বাক্ষাত টিভিতে আজকের খেলা টাঙ্গাইলে সম্প্রীতির দাবিতে ‘সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন’ এর আলোচনা সভা গোপালপুরে জুয়ার উপকরণসহ ৪ জুয়াড়ি আটক সখিপুরে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায়,কো-কম্পোস্ট প্ল্যান্ট ৮ম বর্ষে পদার্পণ উদযাপন

বাসাইলে ঐতিহ্যবাহী ডুবের মেলা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশ : বুধবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ৫০৯ ভিউ
Spread the love
গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ডুবের মেলা যুগ যুগ ধরে পালিত হচ্ছে।মাঘীপূর্ণিমায় এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।যা মানুষের মুখে মুখে ডুবের মেলা নামে পরিচিত।টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার রাশড়া-সৈয়দামপুর গ্রামে বংশাই নদীর পূর্ব-উত্তর তীরে অনুষ্ঠিত হয়েছে দিনব্যাপী এই ডুবের মেলা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,মেলা উপলক্ষে নদীর তীরে দেবতা (মাদব ঠাকুর)এর মূর্তি অধিষ্ঠিত করেছেন।সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাদের পাপ মোচন উপলক্ষে ভোরে  মানত ও গঙ্গাস্নান পর্ব সমাপণ করেন।মেলায় জেলার দূর দূরত্ব থেকে আগত জনগনের পূজা ও স্নান পর্বে অংশ গ্রহণ এবং কেনাকাটার দৃশ্য লখণীয়।
ডুবের মেলায় বসে গ্রামীণ ঐতিহ্যের বাঁশবেত, কাঠ- মাটির তৈজস ও আসবাবপত্রের দোকান।এছাড়া বিভিন্ন প্রকার খাবার এবং ছোটদের আকর্ষণীয় খেলনা ও ব্যবহার্য্য জিনিসপত্রের দোকান।
স্থানীরা জানান, এই মেলা ব্রিটিশ শাসনামলে (বক্ত সাধু) নামে খ্যাত এই সন্যাসী (মাদব ঠাকুর) এর মূর্তি প্রতিস্থাপন করে পূজাঅর্চনা শুরু করেন।এই পূজা উপলক্ষে তখন থেকে গঙ্গাস্নান ও মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।তখন থেকে ইহা (ডুবের মেলা) নামে পরিচিত।ডুবের মেলায় সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গঙ্গাস্নান উৎসব চলে। নারী-পুরুষ ও কিশোর-কিশোরী ম্নান উৎসবে অংশ নেন।মেলা উপলক্ষে আগের দিন সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বাড়িতে আত্নীয়-স্বজন আসেন।
মেলায় আসা অজিত পাল বলেন, ছোট সময় থেকে দেখে আসছি এই মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।কয়েক বছর পর মেলায় আসলাম।সকালে স্নান করেছি।এখন মেলায় ঘুরতেছি।অনেক মানুষের সমাগম হয়েছে।সকালে নারী-পুরুষ, কিশোর-কিশোরীসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষ স্নান করেছে।
যমুনা রানী পাল বলেন,আজ মাঘীপূর্ণিমা। এই মাঘীপূর্ণিমার মধ্যে ডুবের মেলা অনুষ্ঠিত হয়।মেলায় এসে গঙ্গাম্নান ও পূজা দিয়েছি।মাঘীপূর্ণিমায় উপাস রয়েছি।কেউ যদি উপাস থাকে,গঙ্গাস্নান ও পূজা দিয়ে খেতে পারে।
ছোটদের খেলনার দোকানদার সুকুমার সাহা বলেন, ছোট সময় বাপ-দাদার সাথে ডুবের মেলায় আসতাম। এখন দোকান নিয়ে আসি। সকালে বেঁচাকেনা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে বেঁচাকেনা বেড়ে যায়।বেচাকেনা ভালোই হয়।
মাছ বিক্রেতা অমল মালো বলেন, আমি মেলায় তিন রকমের মাছ বিক্রি করছি।সকালে আসছি ভালোই বেচাকেনা হচ্ছে।মাছ প্রায় শেষের দিকে।ডুবের মেলায় প্রতি বছর মাছ বিক্রি করতে আসি।
ডুবের মেলার আয়োজক জীবন মন্ডল বলেন,এই মেলা যুগ যুগ ধরে পালিত হচ্ছে।আমি ৬০ বছর ধরে মেলার আয়োজনের দায়িত্বে রয়েছি।আমার আগে বাপ দাদারা ডুবের মেলা আয়োজন করেছে।ডুবের মেলায় দূর-দূরান্ত থেকে মানুষে আসেন।সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গঙ্গাম্নান অনুষ্ঠিত হয়েছে।হাজার হাজার নারী-পুরুষ,কিশোর-কিশোরী বিভিন্ন বয়সের মানুষ গঙ্গাস্নানে অংশ গ্রহণ করেন।ডুবের মেলায় যদি যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকতো তাহলে ডুবের মেলা জনপ্রিয়তা অর্জন করতো।রাস্তা না থাকার কারণে জমির আইল ধরে মানুষ আসতেছে।
কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামীম আল মামুন বলেন,ডুবের মেলা আমার ইউনিয়নের সৈয়দামপুরে বংশাই নদীর তীরে অনুষ্ঠিত হয়।পূর্বপুরুষ থেকেই এই মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।সনাতন ধর্মাবলম্বীরা মাঘীপূর্ণিমায় ডুবের মেলা পালন করে থাকেন। মেলা দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে অনেক মানুষ মেলা দেখতে আসেন।

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!