1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নে সমস্যা ও সমাধান-শামীম আল মাসুদ রানা - Amader Tangail 24
মঙ্গলবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৭:১৬ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
ভোটারের জাল স্বাক্ষর, মির্জাপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী সানির মনোনয়নপত্র বাতিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাওয়ার্ড পেয়ে খুশি বংশীবাদক শেখ সোলায়মান দেলদুয়ার উপজেলায় আ’লীগের প্রথম নির্বাচনী অফিস উদ্বোধন মির্জাপুরে ১০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল টাঙ্গাইল-২ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ৪ জন প্রার্থী বাসাইলে শিয়ালের কামড়ে শিশুসহ আহত ৫ শুক্লা সিরাজের নির্বাচনে সহায়তা করায় বিএনপি থেকে বহিষ্কার হলেন রাবেয়া সিরাজ কালিহাতীতে বিশাল শোভাযাত্রায় মোজহারুলকে বরণ মির্জাপুরে নৌকার মাঝি শুভ, আনন্দ মিছিল ১৩৩ টাঙ্গাইল-৪ কালিহাতীতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন মোজহারুল টাঙ্গাইলে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু উত্তর টাঙ্গাইল নূরানী শিক্ষক ফাউন্ডেশনের নূরানী স্কলারশীপ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত গোপালপুর শিক্ষক ও কর্মচারী কো-অপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়নের সাধারণ সভা কালিহাতীর মহিষজোড়ায় বিভেদ ভুলে সাত বছর পর একসঙ্গে জুমআর নামাজ আদায় মির্জাপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফের মতবিনিময়

মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নে সমস্যা ও সমাধান-শামীম আল মাসুদ রানা

শিক্ষা ডেস্ক
  • প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৯৬ ভিউ

 

 

 

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করে। স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধানে প্রাথমিক শিক্ষাকে রাষ্ট্রের দায়িত্ব হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করা হয়।
রাষ্ট্রের বিধানগুলো হলো –
(ক) একটি অভিন্ন জনসম্পৃক্ত ও সার্বজনীন শিক্ষা ব্যবস্থা এবং সকল ছেলে মেয়ের মধ্যে বিনামূল্যে ও বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষার প্রসার যা আইন দ্বারা নির্ণয় করা যেতে পারে।
(খ) শিক্ষাকে সমাজে চাহিদা পূরণের সাথে সক্ষম প্রশিক্ষিত ও প্রণোদিত নাগরিক বের করা।
(গ) একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নিরক্ষরতা দূরীকরণ আইন দ্বারা নির্ধারণ করা যেতে পারে। সরকার জাতীয় দায়িত্ব হিসেবে প্রাথমিক শিক্ষাকে মৌলিক অধিকার স্বীকার করে যা বাংলাদেশে একটি নতুন যুগের সূচনা করবে।

স্বাধীনতার সূর্য উদয়ের পর থেকে প্রাথমিক শিক্ষাক্ষেত্রে পুনর্জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। তারই আলোকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৩৬১৬৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ১৫৬৭২৪ জন প্রাথমিক শিক্ষককে জাতীয়করণ করে প্রাথমিক শিক্ষার গতির সঞ্চার করেন।
একটি দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে প্রাথমিক শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। বর্তমান সরকার প্রাথমিক শিক্ষাকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছেন।
বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর পিতার আদর্শের ধারাবাহিকতায়-
১) বিগত ৯/১/২০১৩ খ্রি.তারিখে ২৬১৯৩ টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেন এবং ১০৩৮৪৫ জন শিক্ষককে জাতীয়করণ করেন।
২) প্রাথমিক শিক্ষা খাতকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে বাজেট বরাদ্দ বেশি রাখছেন। প্রাথমিক শিক্ষা কর্মসূচি-৪ এর আওতায় বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়িত করছেন।
৩) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুই বছর মেয়াদী প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম চালু করেছেন।
৪) বিদ্যালয়ে গমন উপযোগী শিশুর সংখ্যা প্রায় শতভাগ নিশ্চিত হয়েছে।
৫) বছরের প্রথম দিনেই বিনামূল্যে শতভাগ শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হচ্ছে।
৬) ঝরে পড়া রোধে উপবৃত্তি প্রদান এবং স্কুল ফিডিং কার্যক্রম গ্রহন করা হয়েছে।
৭) স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিদ্যালয়ে ইন্টারনেট সংযোগসহ কম্পিউটার বিতরণ করা হয়েছে। শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব কর্নার স্থাপন করা হচ্ছে।
৮) পিটিআই সমূহে আইসিটি ল্যাব স্থাপন করে শিক্ষকদের আইসিটি ইন এডুকেশন প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে।
৯) বিদ্যালয়ে ল্যাপটপ ও মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর সরবরাহ করে মাল্টিমিডিয়া মাধ্যমে পাঠদান নিশ্চিত করা হচ্ছে।
১০) শিশুদের মধ্যে যাতে নেতৃত্বের মনোভাব জাগ্রত হয় এবং গণতান্ত্রিক মনোভাব গড়ে ওঠে সেজন্য ২০১০ সাল হতে স্টুডেন্ট কাউন্সিল চালু এবং সেবামূলক মনোভাব গড়ে তোলার জন্য ক্ষুদে ডাক্তার টিম গঠন করে জাতীয় টিকা দিবস কৃমিনাশক ট্যাবলেট খাওয়ানো হচ্ছে। শিশুদের নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে।
১১) ২০১৩ সাল থেকে স্লিপ কার্যক্রমের মাধ্যমে এবং এর সাথে স্থানীয় অনুদান সংগ্রহ করে বিদ্যালয়গুলোকে শিশুবান্ধব করে গড়ে তোলা হচ্ছে।
১২) সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের জন্য আনন্দ স্কুল এবং উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার মাধ্যমে শিক্ষা প্রদান করা হচ্ছে।
১৩) প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য শিক্ষা উপকরণ এবং সহযোগী উপকরণ প্রদান করে একই ধারায় শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
১৪) জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষানীতি ২০১০ এর আলোকে প্রাথমিক শিক্ষা স্তর অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত উন্নীত করা হয়েছে।
১৫) প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য মেরামত ও সংস্কার কাজ চলমান রয়েছে।
সরকারের এতসব গৃহীত সিদ্ধান্ত নেয়ার পরেও মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না। প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নের মূল অন্তরায় হিসেবে পরিগণিত দারিদ্র, শিক্ষার পরিবেশ ও জনবলের অভাব, অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, ধর্মান্ধতা, বাল্যবিবাহ এর মতো সামাজিক অন্তরায়গুলো অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছি। সামাজিক অন্তরায়গুলো কাটিয়ে উঠলেও গুণগত বা মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না। মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়ন বর্তমান প্রেক্ষাপটে একটি গুরুত্বপূর্ন আলোচ্য বিষয়। বিদ্যালয়ে শিশুদের অনিয়মিত উপস্থিতি এবং শিশুর সাবলীলতা না হওয়ার কারণে মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না।
পাঁচ বছরের প্রাথমিক শিক্ষা শেষে শিক্ষার্থীর সকল প্রান্তিক যোগ্যতা অর্জন করার কথা। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে অধিকাংশ শিক্ষার্থীর এ যোগ্যতা অর্জনের মান অত্যন্ত হতাশাজনক। অভিভাবকদের অসচেতনতা, শিক্ষকদের গতানুগতিক পাঠদান পদ্ধতি, পেশার প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ শিক্ষক সমাজ এর বড় অভাব। যদিও গুণগত শিক্ষা কোন একটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে না। এর জন্য প্রয়োজন অনেক উপাদানের সমন্বিত এবং কার্যকর ব্যবস্থাপনা ও কর্মকান্ড। গুণগত শিক্ষার জন্য যেসব উপাদানের যথাযথ সমন্বয় সাধন করতে হবে সেগুলো হচ্ছে -আধুনিক উপযোগী শিক্ষাক্রম, পর্যাপ্ত সংখ্যক যোগ্য ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষক, প্রয়োজনীয় শিক্ষাদান সামগ্রী, ভৌত অবকাঠামো, যথার্থ শিক্ষণ-শিখন পদ্ধতি, উপযুক্ত মূল্যায়ন পদ্ধতি ইত্যাদি।

পিছিয়ে থাকা অভিভাবকগণ বিভিন্ন কারণে তাদের সন্তানকে নিয়মিত বিদ্যালয়ে পাঠাচ্ছেনা। একটি শিক্ষার্থী প্রতিদিন বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রমে অংশগ্রহণ না করার কারণে পিছিয়ে পড়ছে। দ্বিতীয় শ্রেণি উত্তীর্ণ হওয়ার সাথে সাথে একটি শিশু সাবলীলভাবে বাংলা পড়ার দক্ষতা অর্জন হওয়ার কথা। কিন্তু বাস্তবে তা হচ্ছে না। না হওয়ার কারণে ওই শিশু বিদ্যালয়ে এসে শিক্ষকের পড়া দিতে পারছে না। পঠনের এ দুর্বলতা পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত থাকে এবং এক পর্যায়ে সে বিদ্যালয়ে অনিয়মিত শিক্ষার্থী হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে। শ্রমজীবী শিশু ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুরাও বিদ্যালয়ে নিয়মিত আসছে না। এছাড়া বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের পড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষকের ব্যবস্থা যেমন নেই তেমনি নেই প্রয়োজনীয় শিক্ষা সামগ্রী। অথচ এ বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের তাদের দক্ষতা অনুযায়ী তৈরির সুযোগ নিশ্চিত করা গেলে এরা মা-বাবা ও দেশের জন্য বোঝা না হয়ে আশীর্বাদ হয়ে গড়ে উঠবে। শিশুকে বিদ্যালয়ে নিয়মিত করতে যে পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করতে হবে-

ক) অভিভাবকদের শিক্ষার প্রতি সচেতন করা।
খ) অভিভাবকদের সাথে বিশেষ করে মায়েদের সাথে কার্যকর যোগাযোগ স্থাপন করা।
গ) শ্রেণিভিত্তিক মা সমাবেশ নিশ্চিত করা।
ঘ) এসএমসি কে দায়িত্ব পালনে উদ্বুদ্ধ করা এবং প্রয়োজনে জবাবদিহিতার আওতায় আনা।
ঙ) স্থানীয় জনপ্রতিনিধিকে রুটিন ওয়ার্ক হিসাবে এ কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করণ এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করণ।
চ) অভিভাবকদের প্রয়োজনে আইনের আওতায় নিয়ে আসা।
ছ) বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থীদের জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষক নিশ্চিত করা।
জ) শিক্ষকদের পেশাগত দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে প্রতি ৬ মাস পর পর মোটিভেশনাল কর্মশালার প্রয়োজন।
এ কার্যক্রমগুলো বাস্তবায়ন করা গেলে অর্থাৎ শিশুদের নিয়মিত বিদ্যালয়ে উপস্থিতি নিশ্চিত করা এবং শতভাগ শিশুকে বাংলা ও ইংরেজি বিষয়ে সাবলীল করা গেলে মান সম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নে অনেকটাই এগিয়ে যাবে। পরিশেষে একটি সমৃদ্ধ জাতি গঠনে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থায় যেসব প্রতিবন্ধকতা রয়েছে সেগুলো অবশ্যই একদিন দূর হবে এবং জাতির পিতার যে স্বপ্ন ও সাধ নিয়ে এই জাতির পথ চলা শুরু হয়েছিল তা অচিরেই পূর্ণ হবে বলে আমি আশা করি। আমরা পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ,দায়িত্ববোধ এবং সেবাধর্মী একটি জাতি হিসেবে সবাই একযোগে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানে কাজ করবো এই প্রত্যাশা রইলো সংশ্লিষ্ট সবার কাছে।

 

লেখক

শামীম আল মাসুদ রানা
সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার,টাঙ্গাইল সদর।

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews