1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  3. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  4. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  5. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  6. atozlove9@gmail.com : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  7. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  8. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  9. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  10. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
টাঙ্গাইলের ইটভাটাগুলোতে বেড়েই চলেছে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা - Tangail News
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
টাঙ্গাইলে হাটকয়রায় ঝিনাইদহ নদী ও বাঁধের মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ লকডাউনের ৬ষ্ঠ দিনেও কঠোর অবস্থানে বাসাইল উপজেলা প্রশাসন  ঘাটাইলে এক নারীর মৃতদেহ উদ্ধার টাঙ্গাইলে মেডিনোভার ভুল রিপোর্টে রোগীর ভোগান্তি পঞ্চগড়ে দেখা করতে গিয়ে প্রেমিক আটক, প্রেমিকার আত্মহত্যা করোনায় আক্রান্ত হয়ে নায়ক আলমগীর হাসপাতালে ভর্তি কালিহাতীতে পলিথিন কারখানা সিলগালা জরিমানা বাসাইলে বাড়ির সীমানা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলা; আহত ৪ সখীপুরে ট্রাক চাপায় তিন বছরের শিশুর মৃত্যু চূড়ান্ত টেস্ট স্কোয়াডেও শরিফুল, নেই শুভাগত টিভিতে আজকের খেলা ইফতারে খেজুর খাওয়ার উপকারিতা শেষ বলের ছক্কায় মলিন মুস্তাফিজ মধুপুরে কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি টাঙ্গাইলে ফনিন্দ্র মিষ্টান্ন ভান্ডারকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা

টাঙ্গাইলের ইটভাটাগুলোতে বেড়েই চলেছে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা

নিজস্ব প্রতিনিধি
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২০৩ Time View
Spread the love

মাত্র ৫০ টাকা দিন মজুরিতে ইটভাটায় কাজ করছে প্রায় দেড় হাজারের মতো শিশু শ্রমিক। পরিবারে অর্থ উপার্জনের জন্য ইটভাটায় ৫০-৬০ টাকা মজুরিতে দিন-রাত কাজ করে এই শিশুরা।

স্কুলের গণ্ডি না পেরোতেই পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দিন দিন শিশু শ্রমিকের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার প্রায় শতাধিক ইট ভাটায় দেড় সহস্রাধিক শিশু শ্রমিক কাজ করছে। উপজেলার বেশকয়েকটি ইটভাটা ঘুরে শিশু শ্রমিকদের এমন চিত্রই দেখা গেছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিস সূত্র জানায়, পৌরসভা ও ১৪ ইউনিয়নে ১১২ ইটভাটা গড়ে উঠেছে। পৌরসভা, মহেড়া, জামুর্কি, গোড়াই, লতিফপুর, তরফপুর, আজগানা ও বাঁশতৈল ইউনিয়নেই রয়েছে ৯২ ইট ভাটা। এসব ইটভাটায় কাজ করছে উত্তরাঞ্চলের সিরাজগঞ্জ, রংপুর, বগুড়া, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুর, সাতক্ষিরা, নাটোর, কুষ্টিয়া, জামালপুর, শেরপুরসহ বিভিন্ন জেলার শ্রমিকরা। বাবা-মায়ের সঙ্গে ইট ভাটায় কাজ করছে শিশুরা। যাদের বেশির ভাগ বয়স ৮-১১ বছর। দিন রাত কাজ করে এসব শিশু মজুরি পায় ৫০-৬০ টাকা।

কথা হয় কুড়িগ্রাম থেকে ইটভাটায় কাজ করতে আসা শিশু সাব্বির (৯), রাসেল (১০) এবং মনির (৯) সঙ্গে। তিন বন্ধু একই গ্রামের বাসিন্দা। তারা নিজ এলাকায় চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করছে। গত বছরের মার্চ মাসে স্কুল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা বাবা-মায়ের সঙ্গে বাড়ি থেকে মির্জাপুরে এসেছে ইটভাটায় কাজের সন্ধানে। বাবা-মা দিনে রাতে কাজ করে পায় ৩০০-৪০০ টাকা। আর সাব্বির, রাসেল ও মনির পায় ৫০-৬০ টাকা বলে জানায়।

হারভাঙ্গা পরিশ্রম করার পরও তাদের মুখে দেখা গেছে ক্লান্তি, আবার এক ঝিলিক হাসির ছাঁপও দেখা গেছে। তিন বন্ধু জানায়, পড়াশোনার অনেক ইচ্ছে ছিল। বাবা-মায়ের অভাবের সংসার। স্কুল বন্ধ থাকায় তারা আমাদের সঙ্গে নিয়ে ইটভাটায় কাজের সন্ধানে এসেছে। কি আর করবো। এখন আমরা কম মজুরীতে ইটভাটায় কাজ করি।

একই অবস্থা দেখা গেছে উপজেলার বাইমহাটি, দেওহাটা, সোহাগপুর, ধেরুয়া, সৈয়দুপর, কোদালিয়া, হাটুভাঙ্গা, আজগানা, বাঁশতৈল, তরফপুরসহ বিভিন্ন ইটভাটায়।

এ ব্যাপারে কথা হয় রংপুর থেকে ইট ভাটায় কাজ করতে আসা মতিয়ার রহমান (৫৬) ও তার স্ত্রী সালমা বেগম (৪৫) জানায়, অভাবের সংসার। কি আর করবো। দুটি ছেলেকে নিয়ে ইটভাটায় কাজ করি। দুই ছেলে দিনে ১২০ টাকা পায় আর আমরা স্বামী-স্ত্রী পাই ৬০০শ টাকা। নিজেরে খেয়ে দেয়ে কিছু টাকা বাড়ি পাঠাই।

বেসরকারি সংস্থা উদয় এনজিওর নির্বাহী ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) দে সুধীর চন্দ বলেন, পরিবারের অসচেতনতার কারণে স্কুলে শিক্ষার্থী সংখ্যা ঝড়ে পড়ছে। শিশু শিক্ষার্থী ঝড়ে পরার কারণে তাদের ভবিষ্যৎ জীবন যেমন অনিশ্চিত হয়ে পরছে তেমনি দেশে বাড়ছে বেকার সমস্যা। শিশু শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়া রোধে বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থার পাশাপাশি সরকারী ভাবে অভিভাবকদের সচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ড এবং এসব অসহায় শিশুদের উদ্ধার করে তাদের পড়াশোনা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

মির্জাপুর উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার মোহাম্মদ খায়রুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, যে সব শিশু বিভিন্ন ইটভাটায় কাজ করছে তাদের তালিকা সংগ্রহ করে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের বোর্ড সভার মাধ্যমে তাদের সহযোগিতা করা যেতে পারে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল মালেক বলেন, পরিবারের দরিদ্রতা ও বাবা মায়ের অসচেতনতার কারণেই অনেক পরিবারের শিশুরা ইটভাটাসহ বিভিন্ন কারখানা ও দোকান পাটে ভারী কাজ করে থাকে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা ও পরামর্শ করে এসব শিশুদের সহযোগিতার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!