1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
যার যেভাবে খুশি বাংলা লিখছেন - অরণ্য ইমতিয়াজ - Amader Tangail 24
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
উল্লাপাড়ায় দারিদ্র্য বিমোচন কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ  ঘাটাইল পল্লী উদ্যোক্তা ঋণ বিতরণ  বর্ষাকালীন ব্যাডমিন্টন ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত খুদে খেলোয়াড়দের মাঝে ফুটবল বিতরণ দেলদুয়ারে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ১জনক’কে কুপিয়ে গুরুতর জখম ভূঞাপুরে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত গুণি শিক্ষকের ১৫ তম প্রয়াণ দিবস পালন দেলদুয়ারে ভূমিসেবা সপ্তাহের সেবা প্রদান টাঙ্গাইল প্রকৃতি ক্লাবের উদ্যোগে আলোচনা সভা মিরিকপুর গঙ্গাঁচরণ তপশিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন রফিকুল ইসলাম সংগ্রাম বাসাইলে ৬ জনকে টপকিয়ে প্রথমবারেই ভাইস চেয়ারম্যান পদে বাজিমাত করলেন নতুন মুখ সাংবাদিক শহিদ চেক জালিয়াতি মামলায় উল্লাপাড়া মোমেনা আলী বিজ্ঞান স্কুলের  প্রধান শিক্ষক মজিদ গ্রেপ্তার  নাগরপুরে কোরবানি ঈদ সামনে রেখে ব্যস্ত কামার শিল্পীরা ভূঞাপুরে প্রভাতি কিন্ডারগার্টেনের পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত কচুরি পানার চাপে ভেঙ্গে পড়লো ঝিনাই নদীর ব্রীজ 

যার যেভাবে খুশি বাংলা লিখছেন – অরণ্য ইমতিয়াজ

সাহিত্য ডেস্ক
  • প্রকাশ : বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০
  • ২৫০৪ ভিউ
‘পরের মুখে শেখা বুলি পাখির মতো কেন বলিস?
পরের ভঙ্গি নকল করে নটের মতো কেন চলিস?
তোর নিজস্ব সর্বাঙ্গে তোর দিলেন ধাতা আপন হাতে?
মুছে সেটুক বাজে হলি, গৌরব কিছু বাড়ল তাতে?
আপনারে যে ভেঙ্গে চুরে গড়তে চায় পরের ছাঁচে
অলীক, ফাঁকি, মেকি সে জন, নামটা তার ক’দিন বাঁচে?
পরের চুরি ছেড়ে দিয়ে আপন মাঝে ডুবে যারে
খাঁটি ধন সেথাই পাবি আর কোথাও পাবি না রে।’

ব্রিটিশ শাসন আমলে বাঙালিদের একটা বড় অংশের মধ্যে ইংরেজির প্রতি বাড়তি আকর্ষণ জেগেছিল। তাদের সব কিছু ছিল ইংরেজিয়ানা। তারপর ব্রিটিশ বিতাড়িত হয়ে এল পাকিস্তান। তারাও বাঙালির মায়ের ভাষাকে দাবিয়ে উর্দুকে প্রতিষ্ঠিত করতে চাইল-‘উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা’। বাঙালিদের মধ্যে কেউই যে এদের সাধুবাদ জানায়নি তা নয়। এদের কথা আব্দুল হাকিম বলে গেছেন-‘যে সব বঙ্গেতে জন্মি হিংসে বঙ্গবাণী/ সে সব কাহার জন্ম নির্ণয় ন জানি।’ তাদেরকে সত্যিকারের বাঙালি বলতে পারি না। অর্থাৎ বাঙালির ঘরে তাদের জন্ম হয়নি। যারা সত্যিকারে বাঙালি মায়ের সন্তান ছিল তারা জিন্নাহ বাহিনীর উদ্ধত্যপূর্ণ আবদার মানতে পারেনি। ভাষার জন্য প্রাণ দিয়ে পৃথিবীতে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে বাঙালিরা। প্রতিষ্ঠিত হয় বাংলা। এ ভাষার মতো জাদুকরি ভাষা অন্য কোথাও নেই। অথচ বর্তমান সময়ের অনেকেই আছেন যারা কথায় কথায় অন্যের ভাষা ব্যবহার করে ভদ্র সাজতে চান।

বাংলা কবিতায় ‘সনেট’-এর প্রবর্তক মাইকেল মধুসূদন দত্ত প্রথম অবস্থায় বাংলা ও বাঙালিকে অবজ্ঞা করে ইংরেজিতে কবিতা লেখা শুরু করেন। বিয়েও করেন ইংরেজ মেয়ে। ইংরেজিতে মনের ব্যাকুলতা বুঝাতে না পেরে ফিরে আসেন বাংলায়। লিখেন- ‘হে বঙ্গ। ভান্ডারে তব বিবিধ রতন’ এবং নিজেকে ‘যশোরের বাঙাল’ বলে পরিচয় দেন। বাংলা সাহিত্যের আরেক খ্যাতিমান লেখক বঙ্কিমচন্দ্র চট্রোপাধ্যায়ও প্রথম উপন্যাস লিখেছিলেন ইংরেজিতে। পরে মনের ক্ষুধা মেটাতে বাংলায়ই লিখতে শুরু করেন। এ থেকে সহজেই বোঝা যায় বাংলা ভাষা অলীক, ফাঁকি আর মেকি নয়। তারপরও আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যারা বাংলা ছেড়ে অন্য ভাষার চর্চা করেন বেশি। কেউ কেউ বাংলাকে ‘ন্যাকামি’তে পরিণত করতে উৎসাহ বোধ করেন। তারা হয় আব্দুল হাকিমের কঠোর লাইন কটি ভুলে গেছেন না হয় তার কথাকে পাত্তা দিচ্ছেন না। দোষ কি এদের না অন্য কোথাও?

বিশ্বে যখন বাংলা ভাষার মর্যাদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে সেখানে আমাদের নিজেদের মধ্যে কেন এই হীনমন্যতা? যাদের আমরা দোষ দিচ্ছি তাদেরকে শুধরে নেয়ার পথ কি দেখিয়ে দিচ্ছি?

যারা আমলা-বুদ্ধিজীবী, খ্যাতি-অভিলাষী তারাই ভূয়সী প্রশংসা করে তাদের অন্য ভাষার প্রতি আকৃষ্ট করে তুলছেন; সেই সাথে বাংলা ভাষার বারোটা বাজাচ্ছেন। এখনকার ছেলে-মেয়েরা ‘মা’ কে ‘মাম্মি’ আর ‘বাবা’কে ‘ড্যাডি’ ডাকায় অভ্যস্ত হচ্ছে। অভিভাবকদের সাবধান বাণী থাকলে কি এরা এভাবে বেড়ে উঠার সুযোগ পেতো!

ভাষা ব্যবহারে নিয়ম-কানুন, রীতি-নীতি, নতুন প্রথা-পদ্ধতি, বিধি-ব্যবস্থা থাকলেও তার সঠিক প্রয়োগের দিকে কারো মাথা ব্যথা নেই। ভাষাকে রক্ষার ব্যাপারে আমরা খুবই দুর্বল। বাংলা একাডেমী শুদ্ধ বানানের জন্য ‘ব্যবহারিক বাংলা অভিধান’ প্রকাশ করেছে। এটা সবাই মেনে চলবে সেটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আমরা কতটুকু মেনে চলছি?

যে যার মতো ব্যবহার করছি বানানরীতি। জাতীয় পত্রিকা দেখলেই এর উত্তর পাওয়া যাবে। একই বানান একেক পত্রিকা ভিন্ন ভিন্নভাবে ব্যবহার করছে-ফেব্রুয়ারি/ ফেব্রুয়ারী, ঈদুল আযহা/ আজহা… এভাবে। আশ্চর্যের বিষয় এ ব্যাপারে কারো কোন প্রতিক্রিয়া নেই।

এখানে বাংলা শব্দ এবং বানান দিয়ে কিছু উদাহরণসহ কথা বলা প্রয়োজন বোধ করছি। কিছু শব্দ রয়েছে যা আমরা সচরাচর ব্যবহার করছি। অথচ আমরা জানি না শব্দটির ব্যবহার ভুল। পরিপ্রেক্ষিতের স্থলে অনেক সময় ‘প্র্রেক্ষিত’ শব্দটি ব্যবহার করি যা ভুল। প্রেক্ষিত শব্দ এসেছে ‘প্রেক্ষণ’ শব্দ থেকে। প্রেক্ষণ বিশেষ্যপদ যার অর্থ ‘দৃষ্টি।’ প্রেক্ষণ থেকে বিশেষণ রূপে এসেছে প্রেক্ষিত-যার অর্থ যা দেখা হয়েছে। ফলে পরিপ্রেক্ষিত বোঝাতে প্রেক্ষিত শব্দ ব্যবহার সঠিক নয়। এছাড়া ফল, পরিণাম, ফলাফল অর্থে ‘ফলশ্রুতি’ ব্যবহার করা হয়। ফলশ্রুতি শব্দের অর্থ পুণ্যকর্ম করলে যে ফল হয় তা শ্রবণ বা বিবরণ। সুতরাং ফলশ্রুতি ব্যবহার না করে ফল, ফলাফল বা পরিণাম ব্যবহার করাই উচিত। বিভিন্ন আবেদনপত্রে ‘বাধ্যগত’ শব্দটি ব্যবহার করা হয়। কিন্তু বাংলায় বাধ্যগত বলতে কোন শব্দ নেই। এটি তৈরি হয়েছে অনুগত শব্দের সাদৃশ্য হিসেবে। অনুগত এসেছে অনুগমন বিশেষ্যপদ থেকে। যিনি অনুগমন করেন তিনিই অনুগামী বা অনুগত। বাধ্যগমন বলে কোন শব্দ বাংলায় খুঁজে পাওয়া যায় না। ফলে বাধ্যগত শব্দের প্রকৃত প্রয়োগ হলো ‘বাধ্য’। এছাড়াও ‘উল্লেখিত’ শব্দটি প্রায়ই ব্যবহার করা হলেও অভিধানে এশব্দটি খুঁজে পাওয়া যায় না। আসল শব্দটি হলো ‘উল্লিখিত’ (উৎ+লিখিত)। এর বাইরেও অনেক শব্দ রয়েছে যা আমাদের ব্যবহারের সাথে অর্থের মিল নেই বা অর্থ অনুসারে ব্যবহার করি না।

বানানের বেলাতেও একই অবস্থা। তৈরী, তৈরি,-যার যেমন ইচ্ছা লেখা হয়। অথচ বানান পার্থক্যে অর্থ ও ব্যবহারও ভিন্ন হয়ে থাকে। তৈরি যদি.‘’ি-কার দিয়ে লেখা হয় তবে তা ক্রিয়াপদ। একই শব্দ বিশেষণ হিসেবে ব্যবহার করতে ‘ ী’- কার হয়। একই উচ্চারনের শব্দে পদের ভিন্নতা বোঝাতে বানানের এ পার্থক্য। এরকম সমোচ্চারিত শব্দের পদগত অর্থের প্রভেদ বুঝাতেই ‘’ি-কার ও ‘ ী’-কার ব্যবহার হয়। ইদানিং জাতীয় পত্রিকাগুলো একই ভুল করছে। পত্রিকা শিক্ষার অন্যতম মাধ্যম। ভাষা ও বানান শুদ্ধতার ব্যাপারে তাদের গুরুত্ব কম নয়। কিন্তু একেক পত্রিকা একই শব্দ ভিন্ন বানানে লেখায় সাধারণ মানুষ (পাঠক) বিভ্রান্তির শিকার হচ্ছে। পত্রিকাগুলো কি নতুন বানানরীতি চালু করতে চায়? যদি তাই হয় তাহলে এক দেশে এক জাতির জন্য একাধিক রীতি থাকবে কেন? কেন তারা একরীতিতে চলবে না।

দেশের অন্যতম একজন কবি তার এক লেখায় ‘লক্ষ্য’ বানানে য-ফলা ব্যবহার করেননা। তিনি ইচ্ছে করে য-ফলা বর্জন করছেন নাকি ছাপার ভুল জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘ইচ্ছে করেই ব্যবহার করিনি’। লক্ষ্য/লক্ষ দু’টোর উচ্চারণ এক হলেও অর্থের ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। এক্ষেত্রে পাঠক পড়ে শব্দের অর্থ বুঝে নেবে বলে তিনি জানান। তার এ যুক্তি মেনে নিলে আরো অনেক কিছুই মানতে হয়। বাংলা ভাষায় যেসব সমোচ্চারিত শব্দ রয়েছে সেগুলোর ব্যাপারেওতো তাহলে একই যুক্তি বা নিয়ম প্রযোজ্য। সেক্ষেত্রে কি আমরা বলতে পারি যে, ‘মণ’ দিয়ে লেখাপড়া করা উচিত। তাই যদি হয় তাহলে মারি (প্রহার করি), মাড়ী (মড়ক লাগা)ও মাড়ি (দাঁতের মাংসল অংশ)-এরকম শব্দের একটি রেখে বাকীগুলো উঠিয়ে দেয়া যেতে পারে!

হ্যাঁ তাই বলে যে ভাষা ও বানান চিরকালই একই অবস্থানে থাকবে তা নয়; ভাষার ধর্মই হচ্ছে বদলে যাওয়া। তাই বলে আমরা ভাষা পরিমার্জিত করতে গিয়ে অর্থের পার্থক্য গুলিয়ে ফেলতে পারিনা।

আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি মহান শহীদ দিবস। যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনের জন্য সব প্রস্তুতি শেষ। ভাষা সম্পর্কে আমাদের সচেতনতা বোধ কতটুকু আছে এ নিয়ে প্রশ্ন তোলা যায়। তবে একদিনের জন্য যে আমরা পাঞ্জাবি কিংবা শাড়ি পরে খাঁটি বাঙালি হওয়ার চেষ্টা করি এটা স্পষ্ট।

বিভিন্ন অফিস আদালত ও দোকানপাটের সাইনবোর্ডে ভুল বানানসহ বাংলা ভাষায় এত ভুলের ছড়াছড়ি থাকলেও আমরা এ ব্যাপারে সোচ্চার নই। শহীদ দিবস উদযাপন উপলক্ষে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করে সাজানো হয়। তারই অংশ হিসেবে গত বছর টাঙ্গাইল শহীদ মিনার সংলগ্ন সাধারণ গ্রন্থাগার মার্কেটের দক্ষিণ পার্শ্বের দেয়ালে কবি বুলবুল খান মাহবুবের একটি কবিতার লাইন-‘একুশ আমার রক্তে বাজায় অস্থিরতার সুর….’ লেখা হয়। কিন্তু কবির কবিতায় ‘একুশ’ নয় ‘একুশে’ উল্লেখ রয়েছে। একুশ আর একুশের মধ্যে পার্থক্য না থাকলে কবি নিশ্চয়ই এখানে একুশই লিখতেন। এটি পরবর্তীতে আর সংশোধন করা হয়নি। আমাদের দেশের বিভিন্ন সড়কের দোকানে ভুল বানানে সাইনবোর্ড লেখা। সরকারিভাবে এসব ভুল সংশোধনের কোন উদ্যোগ নেই। গত বছর একুশ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সামনে রেখে আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে রাজ্য সরকার যে কোন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সাইনবোর্ড কিংবা ব্যানারে বাংলা ভাষা বাধ্যতামূলক ব্যবহারের নির্দেশ জারি করে। মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয় থেকে ফ্যাক্সবার্তার মাধ্যমে প্রত্যেক জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হয় এ নির্দেশ।

বার্তায় বলা হয়েছে অফিসে ইংরেজী টাইপ মেশিনের সঙ্গে বাংলা টাইপ মেশিনও রাখতে হবে। আমাদের যা আগে করার কথা তা পাশের দেশ করছে এতে আমরা একটুও লজ্জিত নই। আমরা অনেক ব্যাপারেই পাশের দেশগুলোর সাথে তাল মেলাই। সে খাতিরেও কি এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া উচিত নয়। তা না হলে হয়তো দেখা যাবে একসময় বাংলা ভাষার গুরুত্বই হারিয়ে গেছে।

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews