1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  3. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  4. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  5. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  6. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  7. atozlove9@gmail.com : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  8. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  9. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  10. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  11. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
৫০ বছরেও স্মৃতি রক্ষায় হয়নি কিছু শহীদ আলী আজগর ইতিহাসের একটি নাম - Tangail News
শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৪:৫৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
বাসাইলে হেল্প এ্যান্ড নলেজে’র টিউবওয়েল ও ঈদ উপহার বিতরন নতুন করে কৃষি বিপ্লব ঘটবে :কৃষিমন্ত্রী এসএসসির ফরম পূরণের নতুন তারিখ ঘোষণা টিভিতে আজকের খেলা দুই ভাগে মুক্তি পাবে আল্লুর পুষ্পা জাবি ছাত্র শাকিলউজ্জামানসহ সকল নেতাকর্মীর মুক্তির দাবিতে গোপালপুরে মানববন্ধন নারায়ণগঞ্জ থেকে অপহৃত যুবক ঘাটাইলে উদ্ধার হাওরে প্রায় শতভাগ বোরো ধান কাটা শেষ: কৃষিমন্ত্রী ধনবাড়ী প্রেসক্লাব সম্পাদকের ফেসবুক পেইজ হ্যাক কালিহাতীতে প্রবাসী হাবিবুর সিদ্দিক লিটনের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ বাসাইলে অভ্যন্তরীণ বোরো ধান সংগ্রহের উদ্বোধন বাসাইলে কৃষকদের মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত কালিহাতীতে গাঁজাসহ আটক দুই বাসাইলে টিসিবির পণ্য কিনতে দীর্ঘ লাইন বাসাই‌লে হিজড়া সম্প্রদা‌য়ের মা‌ঝে ঈদ উপহার সামগ্রী  বিতরণ

৫০ বছরেও স্মৃতি রক্ষায় হয়নি কিছু শহীদ আলী আজগর ইতিহাসের একটি নাম

এম এম হেলাল
  • Update Time : সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৯৮ Time View
Spread the love

 

তৎকালীন ময়মনসিংহ জেলার অন্তর্গত টাঙ্গাইল মহকুমার কালিহাতী উপজেলার সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে সাতুটিয়া গ্রামের মৃত মুন্সি আলিম উদ্দিন সরকার (ডিলার সাব) ও মৃত হালিমা বেগম দম্পতির ঘরে ১৯৪১ সালের ১লা জানুয়ারি জন্মগ্রহন করেন আলী আজগর। ছোটবেলা থেকেই আলী আজগর অত্যন্ত মেধাবী ও মিশুক স্বভাবের ছিলেন। শহীদ আলী আজগরের তিন ভাই- কছিম উদ্দিন, আব্দুল করিম ও আব্দুল হামিদ এবং চার বোন- ফুলজান নেছা, শামছুন্নাহার বেগম, আয়েশা বেগম ও আমেনা বেগম।

মেধাবী আলী আজগর ১৯৬৭ সালে কালিহাতী আর এস সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় (বর্তমান) থেকে এস.এস.সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে টাঙ্গাইলের সরকারি মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজে (কাগমারি কলেজ) ভর্তি হোন। তারপর ধীরে ধীরে ইতিহাস হয়ে উঠার পথে অগ্রসর হোন তিনি। আলী আজগর ধীরে ধীরে ছাত্রনেতা হয়ে উঠেন।

উদীয়মান এই ছাত্রনেতা ১৯৬৯-১৯৭০ সালের জন্য অত্র কলেজের ছাত্র-সংসদের সাধারণ সম্পাদক (জি.এস) নির্বাচিত হোন, জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব প্রাপ্ত হোন। ছাত্রলীগের নেতা হিসেবে তিনি তৎকালীন সরকার বিরোধী বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে সাহসের সাথে নেতৃত্বও দিয়েছেন। তিনি সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রাখতেন সব সময়।

শহীদ আলী আজগর একটি নাম, একটি ইতিহাস।সময়টা ১৯৭১, সারাদেশে যখন স্বাধীনতা সংগ্রামের উত্তাল হাওয়া বইছে রীতিমতোন সেই উত্তাল হাওয়া গাঁয়ে মাখিয়ে দেশ মাতৃকার স্বাধীনতার স্বপ্নে বিভোর হয়ে মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় কালিহাতী তথা টাঙ্গাইলে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত কাজ করার পাশাপাশি নিজেও ১লা এপ্রিল মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণ করে।

 

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল ভোর ৬টায় মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ও ছাত্রনেতা আলী আজগর কালিহাতী বাসস্ট্যান্ডে তৎকালীন ঢাকাইয়া (গ্রীন হোটেল) হোটেলে বসে মুক্তিযোদ্ধাদের খাবার সংগ্রহ সহ নানা বিষয়ে পরিকল্পনা করছিলেন।

 

সকাল ১০টায় সমরাস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পাকবাহিনী টাঙ্গাইল হয়ে এদিকে আসছে সংবাদ পেয়ে কাদের সিদ্দিকী একজন সিগন্যাল ম্যানকে পাঠান খবর নিতে। সিগন্যাল ম্যান বাগুটিয়ার অদূরে পাকবাহিনীর বহর দেখতে পেয়ে দ্রুত এসে খবর দেয়ার কিছুক্ষণ পরেই পাকবাহিনী কালিহাতী সদরে প্রবেশ করে আক্রমণ শুরু করে।

এসময় লতিফ সিদ্দিকী বর্তমানে হাসপাতাল রোড ধরে চলে গেলেও অদম্য আলী আজগর ঢাকাইয়া (গ্রীন হোটেল) হোটেলেই অবস্থান করছিলেন।

 

মুক্তিযোদ্ধারা অবস্থান করছেন খবর পেয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী গ্রীন হোটেলে প্রবেশ করে আলী আজগরকে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে হোটেলের এক পাকিস্তানী কর্মচারী তঁাকে তার ভাই পরিচয় দিয়ে বাঁচিয়ে বাড়ি যেতে পাঠিয়ে দেয়। পথিমধ্যে বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন ব্রীজের উত্তর-পূর্ব কিনারায় হানাদার বাহিনী তাঁকে নির্মমভাবে গুলি করলে তিনি শাহাদৎ বরণ করেন।

পরিবেশ না থাকায় পরে শহীদ আলী আজগরকে ঝগড়মান কবরস্থানে দাফন করা হয়। এদিন মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে জামাল উদ্দিনও শহীদ হোন। সতের-উনিশ জনের মতোন সাধারণ মানুষ মারা যায়। স্বাধীনতার ৫০ বছর পার হলেও তাঁদের স্মরণে কখনও কেউই কোনও কর্মসূচি পালন করেনি।

তাঁদের স্মৃতি রক্ষায় কোনও সড়ক, ফলক, স্মৃতি-স্তম্ভ কোনও কিছুই করা হয়নি। যা একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে খুবই দুঃখের-কষ্টের এবং লজ্জাজনক। এভাবেই কথাগুলো বলেন শহীদ আলী আজগরের চাচাতো ভাই বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল মালেক।

১৯৭১ সালের ১৭ই এপ্রিল কালিহাতীতে পাক-হানাদার কর্তৃক সম্মুখ যুদ্ধে দেশ মাতৃকার জন্য জীবন উৎসর্গ করে কালিহাতীতে প্রথম শহীদ হোন ক্ষণজন্মা এ মানুষটি। শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আলী আজগরের বিশেষ গেজেট নং-১৫৬৫, শহীদ নং-০২, মুক্তিবার্তা লাল বই নং-০১১৮০২০৫৩৬, বাংলাদেশ গেজেট নং-২৪১০।

বছর আসে বছর যায়, দেখতে দেখতে চলে গেলো স্বাধীনতার ৫০ বছর। জাতী পালন করলো স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী।

দীর্ঘ ৫০ বছরেও শহীদ আলী আজগর স্মরণে কালিহাতীতে তৈরী হয়নি কোনও স্মৃতি স্তম্ভ, তোরণ, মিনার। মহান মুক্তিযুদ্ধের সূতিকাগার কালিহাতীতে কোনও সড়কের নামকরণ পর্যন্ত করা হয়নি। গ্রহন করা হয়নি স্বাধীনতাযুদ্ধে জীবন উৎসর্গ করা শহীদদের স্মৃতি রক্ষায় কোনও পদক্ষেপ বা কর্মসূচী।

১৯৭২ সালে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্যোগে তাঁর স্মৃতি স্মরণ ও সংরক্ষণে শহীদ আলী আজগর স্মৃতি সংঘ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গঠন করা হয়।

১৯৯০ সালে মহান স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠক শাজাহান সিরাজের নির্দেশনায় তাঁর প্রতিষ্ঠিত কালিহাতী শাজাহান সিরাজ কলেজ (কালিহাতী কলেজ) কর্তৃপক্ষ শহীদ আলী আজগরের স্মৃতি স্মরণ ও সংরক্ষণে ১ টাকার বিনিময়ে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ মহাসড়কে কালিহাতী বাসস্ট্যান্ডের পূর্ব পাশে অবস্থিত মার্কেট হতে স্মৃতি সংঘটির নামে একটি প্লট বরাদ্দ করেন। সেখানে শহীদ আলী আজগর স্মৃতি সংঘ নামে একটি ক্লাব থাকলেও যার কোনও কার্যক্রম নেই। স্থানীয় প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বা কোনও রাজনৈতিক সংগঠন এমনকি স্মৃতি সংঘটির পক্ষ থেকেও কোনও সময় শাহাদত বার্ষিকী পালনে কোনও স্মরণ, আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ইত্যাদি আয়োজন লক্ষ করা যায়নি।

সম্প্রতি ক্লাবটির দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন শহীদ আলী আজগরের পরিবার।

দেশে কোভিড-১৯ নভেল করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে চলমান কঠোর বিধি-নিষেধের মধ্যে শনিবার ১৭ এপ্রিল শহীদ আলী আজগরের ৫০তম শাহাদত বার্ষিকীতে সীমিত পরিসরে ঝগড়মানে শহীদের কবর জিয়ারত করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযুদ্ধ কালীন কোম্পানী কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আশরাফ হুমায়ুন বাঙ্গাল, শহীদ আলী আজগরের পরিবারের সদস্যবৃন্দ এবং সাতুটিয়া ও ঝগড়মান গ্রামবাসী। আজও শহীদ আলী আজগরকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন কালিহাতীবাসী। শহীদ আলী আজগরের পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শহীদ আলী আজগর স্মৃতি সংঘ নিয়েও নানান ষড়যন্ত্র করছে স্বার্থান্বেষী প্রভাবশালী একটি মহল। পরিবার ও এলাকাবাসির দাবি হাসপাতাল রোডটি শহীদ আলী আজগরের নামে নামকরণ করা হোক।

 

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মিজানুর রহমান এ বিষয়ে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, তৎকালীন ছাত্রনেতা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আলী আজগরের স্মরণে আমরা এতো দিনেও কিছু করতে পারিনি, তা আমাদের জন্য লজ্জাজনক ও চরম ব্যর্থতার পরিচয়। আসলে রাজনৈতিক বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে এ কাজ গুলো করা হয়ে উঠে না। ইতিপূর্বে আমরা শহীদ আলী আজগরসহ পাঁচজন বিশিষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধার নামে ৫টি সড়ক নামকরণের প্রস্তাব করলে, তার মাত্র একটির বাস্তবায়ন হয়। বাকিগুলো হিমঘরেই পড়ে আছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার রুমানা তানজিন অন্তরা এ বিষয়ে বলেন, করোনাকালীন পরিস্থিতি উত্তোরণের পরপরই সংশ্লিষ্টদের সাথে বসে দ্রুত সময়ে এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!