1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
টাঙ্গাইলের প্রাচীন ও ঐতিহাসিক আতিয়া জামে মসজিদ - Amader Tangail 24
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৭:০৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
গোপালপুরে স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রীর মৃত্যু, স্বামী আটক বাসাইলে তামাক নিরোধ বিষয়ক মতবিনিময় সভা নাগরপুর আলিম মাদ্রাসার কেউ পাস করেনি। সখিপুরে এমপিকে আত্মার হুমকির প্রতিবাদে মানবন্ধন ও প্রতিবাদ সভা নাগরপুরে বিয়ে না দেওয়ায় অভিমানে ছেলের আত্মহত্যা গোপালপুরের পরিবহন শ্রমিকদের ডাটাবেজ বা নিবন্ধন তৈরি শুরু আজ ভয়াল ১৩ মে, টর্নেডোর আঘাত আজও ভুলেনি বাসাইলবাসী উল্লাপাড়ায় ৪ মাদ্রাসায় কোন শিক্ষার্থীই পাশ করেনি  ভূঞাপুরে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দায়ে দুই প্রার্থীকে জরিমানা! উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ঋণ খেলাপি দায়ে ইঞ্জিনিয়ার সোহরাব হোসেন ও সালাউদ্দিনের মনোনয়ন পত্র বাতিল সখিপুরে আ.লীগের বিরুদ্ধে আ.লীগের প্রতিবাদ সভা কালিহাতীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা নাগরপুরে এক নারীর মরদেহ উদ্ধার ঋণ করে জনগণের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করছি -ইউপি চেয়ারম্যান ভূঞাপুরে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত নির্বাহী অফিসারের মতবিনিময়

টাঙ্গাইলের প্রাচীন ও ঐতিহাসিক আতিয়া জামে মসজিদ

ইসমাইল হোসেন সেলিম
  • প্রকাশ : রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
  • ১০৬৪ ভিউ
আতিয়া জামে মসজিদ

আতিয়া জামে মসজিদ

 আতিয়া জামে মসজিদ শুধু টাঙ্গাইল জেলায় নয় সমগ্র বাংলাদেশের মসজিদের ইতিহাসে এক বিশেষ স্থান দখল করে আছে। মুসলিম ঐতিহ্যের ধারক এই আতিয়া মসজিদ। টাঙ্গাইল শহর হতে ৭ কিলোমিটার দক্ষিণ – পশ্চিমে লৌহজং নদীর পূর্ব তীরে দেলদুয়ার উপজেলায় অবস্থিত আতিয়া মসজিদ যা স্থানীয়ভাবে আটিয়া মসজিদ হিসেবে পরিচিত।

দশ টাকা নোটে আতিয়া জামে মসজিদ

মসজিদের নির্মাতা করটিয়ার প্রখ্যাত জমিদার বংশের আদি পুরুষ সায়ীদ খান পন্নী। মসজিদের প্রবেশ পথের উপরেই রয়েছে একটি শিলালিপি যাতে উৎকীর্ণ রয়েছে মসজিদটি ১০১৮ হিজরি (১৬০৮/০৯ খৃঃ) সনে বায়েজিদ খান পন্নীর পুত্র সায়ীদ খান পন্নী নির্মাণ করেন। এরপর প্রায় ২২৫ বছর পর দেলদুয়ার জমিদার বাড়ির মহীয়সী নারী রওশন খাতুন চৌধুরানী মসজিদের সংস্কার কাজ করেন। পরবর্তীতে ১৯০৯ সালে দেলদুয়ারের জমিদার আবু আহমেদ গজনবী ও করটিয়ার জমিদার ওয়াজেদ আলী খান পন্নী সহ অনেকে মিলে মসজিদ পুনঃ সংস্কার করেন। মসজিদটি চুন, সুরকি ও ইট দিয়ে নির্মিত। বাইরের দিক থেকে মসজিদের দৈর্ঘ্য ২০.৯ মিটার এবং প্রস্থে ১৬.১৬. মিটার (৬৯’-০”x ৪০’-০”)। মসজিদের দেওয়াল ২.৭২ মিটার (৭’-৬”) পুরু। মসজিদের ৪ কোনায় ৪টি মিনার। প্রধান কক্ষ ও বারান্দা দুইভাগে বিভক্ত। এর প্রধান কক্ষটি বর্গাকৃতি। ভেতরের দিক থেকে এর প্রত্যেক বাহুর দৈর্ঘ্য ৭.৫৭ মিটার (২৫’-০”)। মসজিদের প্রধান কক্ষের উপরেই রয়েছে বিশাল গম্বুজ আর বারান্দার কক্ষের উপর রয়েছে ৩টি গম্বুজ। বারান্দার পূর্ব দেওয়ালে ৩টি প্রবেশ পথ। উত্তর ও পূর্ব পাশের দেওয়ালে টেরাকোটার কাজ করা। অপূর্ব স্থাপত্যশৈলী ও টেরাকোটার কারুকাজে সৌন্দর্যের প্রতীক হিসেবে মসজিদটি ১০ টাকার নোটে স্থান পেয়েছে। টাকায় স্থানের বিষয়টিও বৈশিষ্ট্যপূ্র্ণ। এ বিষয়ে কিছু আলোকপাত করা আবশ্যক মনে করি। বাংলাদেশ ব্যাংকের ৩য় গভর্নর নুরুল ইসলাম ( কার্যকাল ১৯৭৬-১৯৮৭) এর স্বাক্ষরে প্রথম আতিয়া মসজিদের ছবিযুক্ত ১০ টাকার নোট প্রবর্তন করা হয়। পরবর্তীতে মসজিদের আর একটি পরিবর্তিত ছবি যুক্ত করে একই গভর্নরের স্বাক্ষরে নোট বাজারে আসে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ৪র্থ গভর্নর সেগুফতা বখত ( কার্যকাল ১৯৮৭-১৯৯২) এর স্বাক্ষরে এই নোট পুনঃ প্রবর্তন করা হয়। এখানে উল্লেখ্য দেশের অদ্যাবধি প্রবর্তিত সকল প্রকার নোটের মধ্যে কেবলমাত্র এই নোটটিতে মসজিদের ছবির উপর আরবি ও বাংলায়

” আল্লাহু আকবর ” লিখা যুক্ত করা হয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৫ম গভর্নর খোরশেদ আলম ( কার্যকাল ১৯৯২-১৯৯৬) এর স্বাক্ষরে পুনরায় এই নোট প্রবর্তন করা হয়। ৬ষ্ঠ গভর্নর লুৎফর রহমান সরকার ( কার্যকাল ১৯৯৬-১৯৯৮) এর সময়ে তার স্বাক্ষরে আতিয়া মসজিদের একই ছবিযুক্ত নোট বাজারে আসে এর মধ্যে ১৯৯৬ সালে ” বিজয় দিবস রজত জয়ন্তী ১৯৯৬” নোটের বামপাশে লিখা সহ স্মারক নোট হিসেবে এই নোটটি প্রবর্তন করা হয়। স্মারক নোট হিসেবে এই নোটটি কেবলমাত্র প্রচলিত নোট হিসেবে বিবেচিত হয়।

আতিয়া জামে মসজিদ

আতিয়া মসজিদের ছবিযুক্ত এই সকল বৈশিষ্ট্যতার কারণে ১০ টাকার এই নোটটি বিশেষ স্থান দখল করে আছে। বাংলাদেশ প্রত্নতাত্ত্বিক অধিদপ্তরের আওতায় বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর এই মসজিদের তত্বাবধান করছে। মসজিদটি যুগ যুগ ধরে স্থাপত্যের অনন্য নিদর্শন হয়ে টাঙ্গাইলের ঐতিহ্য ধারণ করে রাখবে বলে আমাদের প্রত্যাশা।
লেখকঃ ইসমাইল হোসেন সেলিম 

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews