1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : md Hasanuzzaman khan
  2. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  3. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  4. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  5. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  6. atozlove9@gmail.com : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  7. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  8. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  9. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  10. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
দফায় দফায় বন্যায় টাঙ্গাইলের লেবু চাষিরা সর্বশান্ত - Tangail News
রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০৪:১০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
শবনম ফারিয়া-অপুর সংসারে বিচ্ছেদ কালিহাতীতে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৃতীয় শ্রেণি কর্মচারীদের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোপালপুরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত ভূঞাপুরে শান্তিপূর্ণ পৌর নির্বাচন শীর্ষক আলোচনা সভা  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর নির্মান কাজের উদ্বোধন কাল মির্জাপুরে ডিসি, ইউএনও, এসিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিএনপি নেতার মামলা সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছেন ইরানের জ্যেষ্ঠ পরমাণুবিজ্ঞানী আরব আমিরাতে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু আরো দুই রকম ফোল্ডেবল ডিভাইস আনছে স্যামসাং! অভিনেতা আলী যাকের আর নেই সাবেক সংসদ সদস্য জয় করোনায় আক্রান্ত ঘাটাইলে দুই শিশু শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের অভিযোগে দুই মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেফতার কালিহাতীতে পুকুর থেকে সরকারি ওষুধ উদ্ধার আসছে আরেক মহামারী! বিল গেটসের ভবিষ্যদ্বাণী! ভুয়া অনলাইনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে: তথ্যমন্ত্রী

দফায় দফায় বন্যায় টাঙ্গাইলের লেবু চাষিরা সর্বশান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০
  • ২১ Time View
Spread the love

দফায় দফায় বন্যায় টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার, নাগরপুর ও মির্জাপুর উপজেলার লেবু চাষে ধ্বস নেমে এসেছে। ফলে তিনটি উপজেলার পাঁচ শতাধিক লেবু চাষি পথে বসার উপক্রম হয়েছে। কেউ কেউ লেবু চাষ ছেড়ে দিনমজুরি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।
জানাগেছে, টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলার মধ্যে ছয়টিতে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে লেবু চাষ হয়ে থাকে। এগুলো হচ্ছে দেলদুয়ার, নাগরপুর ও মির্জাপুর উপজেলা সমতল ভূমি এবং সখীপুর, ঘাটাইল ও মধুপুর উপজেলা পাহাড়ি এলাকা। জেলার দেলদুয়ার ও মির্জাপুর উপজেলায় সর্বাধিক লেবু উৎপাদিত হয়। দেলদুয়ার ও মধুপুর উপজেলায় উৎপাদিত লেবু সরকারি প্রতিষ্ঠান ‘হটেক্স ফাউন্ডেশন’র মাধ্যমে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানী হয়ে থাকে।
টাঙ্গাইল জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলায় মোট দুই হাজার ১৫৭ হেক্টর জমিতে লেবু চাষ হয়। জেলায় এ বছর ৪৩ হাজার মেট্রিক টন লেবু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। কৃষি বিভাগ জানায়, এবার দীর্ঘস্থায়ী বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হচ্ছেনা। শুধুমাত্র দেলদুয়ার উপজেলায়ই ৪০ হেক্টর লেবু বাগান বিনষ্ট হয়ে গেছে।
সরেজমিনে দেলদুয়ার উপজেলার সদর ইউনিয়ন, লাউহাটী, ফাজিলহাটী, নাগরপুর উপজেলার মোকনা, পাকুটিয়া, মামুদনগর, মির্জাপুরের বানাইল, আনাইতারা, ওয়ার্শী, জামুর্কী ইউনিয়নের লেবু বাগানগুলো সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যার পানি দীর্ঘদিন থাকায় লেবুগাছের গোড়ায় পঁচন ধরে বাগান সম্পূর্ণ বিনষ্ট হয়ে গেছে। মরে যাওয়া লেবু গাছগুলো বর্তমানে জ¦ালানী হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। অধিকাংশ চাষি জানান, তারা লেবু বাগান বাদ দিয়ে অন্য ফসল উৎপাদনে যাবেন। সরকারি সহযোগিতা ব্যতিত এ ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া তাদের পক্ষে প্রায় অসম্ভব।
দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটী ছয়আনী পাড়া গ্রামের লেবু চাষি মো. রেফাজ তালুকদার, ভবানীপুরের মো. কদম আলী, হুমায়ুন কবীর, নাগরপুরের মোকনা ইউনিয়নের কেদারপুরের মো. নাজিম উদ্দিন, মো. আলম মিয়া, মো. ইউসুফ মিয়া সহ অনেকেই জানান, তারা অন্যের জমি তিন বছর মেয়াদী অস্থায়ী বন্দোবস্ত(লিজ) নিয়ে লেবু বাগান করেছিলেন। লেবু বাগানে দীর্ঘদিন বন্যার পানি জমে থাকায় প্রথমে গাছেরপাতা হলুদ হয়ে ঝড়ে পরেছে। বাধ্য হয়ে তারা গাছের ছোট-বড় সব লেবু তুলে কমদামে বিক্রি করে দিয়েছেন। পরে ধীরে ধীরে গাছগুলোও মরে গেছে। ফলে তারা পুঁজি হারিয়ে সর্বশান্ত হয়েছেন।
লাউহাটী ছয়আনী পাড়া গ্রামের লেবু চাষি হুমায়ুন কবীর জানান, এক সময় তিনি নিঃস্ব ছিলেন। অন্যের লেবু বাগানে দিনমজুরের কাজ করতেন। ধীরে ধীরে টাকা জমিয়ে ১০ বছর আগে তিনি ১২০ শতাংশ ভূমি বন্দোবস্ত(লিজ) নিয়ে লেবু বাগান করেছিলেন। ওই লেবু বাগানের আয় দিয়ে তিনি পরিবারের খরচ মিটিয়ে দুই ছেলেকে পড়ালেখা করাচ্ছেন। তার বড় ছেলে মো. আল-আমিন এইচএসসি পরীক্ষার্থী, অপর ছেলে মিজানুর রহমান ৭ম শ্রেণির ছাত্র। বন্যায় তার লেবু বাগান পুরোপুরি ধংস হয়ে গেছে। ফলে ছেলেদের পড়ালেখাও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। তিনি বর্তমানে এলাকায় দিনমজুরি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।
স্থানীয় পুটিয়াজানী বাজার, লাউহাটী বাজার, ফাজিলহাটী বাজার, কেদারপুর বাজারের পাইকারী লেবু ব্যবসায়ী মিনহাজ মিয়া, মো. রাশেদুল আলম, মো. আয়নাল খানসহ অনেকেই জানান, বন্যার পানি আসার সময় বাগান মালিকদের কাছ থেকে তারা কমদামে লেবু কিনে ঢাকা, বরিশাল, বগুড়া, সিরাজগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করেছেন। বন্যায় বাগান ধংস হওয়ায় বর্তমানে লেবু পাওয়া যাচ্ছেনা। ফলে বাজারে লেবুর দাম বেড়েছে। আগে যে বস্তা লেবু দুই হাজার টাকায় কিনতেন তা এখন পাঁচ হাজার টাকায় কিনতে হচ্ছে। তারপরও লেবু পাওয়া যাচ্ছেনা।
টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আহসানুল বাশার জানান, লেবুকে এখনও কৃষি বিভাগ ফসল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। সেজন্য লেবু খাতে কৃষি মন্ত্রাণালয়ের কোন বরাদ্দ নেই। তিনি জানান, লেবুর চারা রোপণ থেকে ফল উৎপাদন পর্যন্ত সাধারণত তিন বছর সময় লাগে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কমপক্ষে এক বছর সময় লাগতে পারে। এবারের দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত লেবু চাষিদের মাঝে চারা বিতরণের লিখিত প্রস্তাবনা তিনি উর্ধ¦তন কর্তপক্ষের কাছে পাঠিয়েছেন।

এম/ইউ/এ

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!