1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
মধুপুর গড়ে ২৮৬৫৯ জনের দখলে ৪১২৬১ একর বনভূমি - Amader Tangail 24
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১০:২৬ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
বাসাইলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন টাঙ্গাইলে সৃষ্টি একাডেমিক ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত বাসাইলে ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত উল্লাপাড়ায় ২ দিনব্যাপী মানবধর্ম মেলার উদ্বোধন  নাগরপুরে ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বাঙ্গালী সংস্কৃতি জাগ্রত হলে অসাম্প্রদায়িক চেতনা জাগ্রত হবে নাগরপুরে মঙ্গল শোভাযাত্রা উদ্বোধনের সময় বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী বাসাইলে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত আমাদের মূল লক্ষ্যই হলো হস্ত ও কুটির শিল্পকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া- বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী সখিপুরে একই মাতৃগর্ভে ৬ সন্তান সখিপুর উপজেলা হাসপাতালে সেবা নিতে আসা রোগীদের ঈদ আনন্দ সেবা সংঘের উদ্যোগে ঈদ সমগ্রী বিতরণ নাগরপুরে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হজ্ব এজেন্সির নামে টাকা তুলে আত্মসাৎ অভিযোগে দালাল আটক বাসাইলে এসএসসি ২০১৬ ব্যাচের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বাসাইলে ইফার উদ্যোগে সরকারি যাকাত ফান্ড থেকে যাকাত বিতরণ

মধুপুর গড়ে ২৮৬৫৯ জনের দখলে ৪১২৬১ একর বনভূমি

অরণ্য ইমতিয়াজ
  • প্রকাশ : শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১২০২ ভিউ

মধুপুর গড়াঞ্চলের জলই গ্রামটি টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়ক থেকে পশ্চিম দিকে। সড়ক থেকে এক কিলোমিটার ভেতরে গেলে রাস্তার দুইপাশে চোখে পড়বে বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি। এক সময় এসব জায়গায় বন ছিল। বর্তমানে সেগুলো দখল হয়ে গেছে। ধরাটি মধুপুরের আরেকটি গ্রামের নাম। ধরাটি বাজার থেকে দোখলা পিকনিক স্পটে যাওয়ার পথে ১০০ গজ এগিয়ে গেলেই চোখে পড়বে বনবিভাগের একটি ফলক। তাতে লেখা, ফরেস্ট্রি সেক্টর প্রকল্প, চাঁদপুর বিট, কৃষি বন বাগান, ১৯৯০ খ্রিষ্টাব্দ। এসময় (১৯৯০ সাল) ধরাটি, কোনাবাড়ী, আঙ্গারিয়া, ফুলবাগচালা, গেন্দারচালা, রাঘামারিসহ পাহাড়ি এলাকায় বনায়ন করা হয়। ওই ফলকটি তারই স্মারক। স্থানীয়রা জানান, বনায়নের গাছ শেষ হয়ে গেছে। প্রভাবশালীরা সে সব জায়গায় কলা, আনারসসহ বিভিন্ন প্রকারের ফল ও ফসল আবাদ করছে। সে জায়গা এখন তাদের দখলে। এভাবেই মধুপুর গড়ের বিপুল পরিমাণ বনভূমি বেদখল হয়ে গেছে।
দখলের প্রক্রিয়া সম্পর্কে স্থানীয় বনবিভাগের কর্মকর্তা ও স্থানীয়রা জানান, বনের জায়গায় প্রথমে একটি দুটি করে গাছ কাটা হয়। আস্তে আস্তে গাছ কাটার সংখ্যা বাড়ানো হয়। পরিস্কার করা হয় জায়গা। তারপর সেখানে লাগানো হয় কলা, আনারসসহ অন্য গাছ। পরবর্তীতে সেই জায়গা চলে যায় অন্যের দখলে। বনবিভাগ ওই জায়গা উদ্ধার করতে গেলে শুরু হয় আন্দোলন। অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রভাবশালী মহলের চাপে বন্ধ হয়ে যায় উদ্ধার অভিযান। এভাবেই দেশের তৃতীয় বৃহত্তম বনাঞ্চল মধুপুর গড়ের বিপুল পরিমাণ জায়গা বেদখল হয়ে গেছে।
টাঙ্গাইল বনবিভাগের এক জরিপ থেকে জানা যায়, টাঙ্গাইলের মধুপুর, ঘাটাইল, সখীপুর ও মির্জাপুরের এক লাখ ১৮ হাজার ৪০৪ দশমিক ৮৪ একর বনভূমি নিয়ে মধুপর গড়। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পূর্ব ও পরবর্তীতে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার সুযোগে বনভূমি দখল হতে থাকে। এরমধ্যে ৪১ হাজার ২৬১ দশমিক ৬৫ একর বনভূমি দখল হয়ে গেছে। দখলদার রয়েছেন ২৮ হাজার ৬৫০ জন। সবচেয়ে বেশি দখল হয়েছে মধুপুর গড়ের মধুপুর অঞ্চলে। সেখানে ৪২ হাজার ৪৯৭ একরের মধ্যে ৮ হাজার ৪১৭ জন মিলে দখল করেছেন ২১ হাজার ৮৫০ একর ভূমি। এছাড়া ঘাটাইল অঞ্চলে ২৫ হাজার ৭৮৫ একরের মধ্যে এক হাজার ৯০০ একর দখল হয়েছে। দখলদার হলেন ৫ হাজার ৪২১ জন। মির্জাপুরে ৯ হাজার ৬০৪ একরের মধ্যে ৪ হাজার ৬১৪ দখল করেছেন ৩ হাজার ৬০৩ জন। সখীপুরে বনভূমি রয়েছে ৪০ হাজার ৫১৮ একর। ১১ হাজার ২১৮ জন মিলে দখল করেছেন ১২ হাজার ৮৯৬ একর বনভূমি। দখলদারদের মধ্যে ক্ষমতাশীন দল আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, জনপ্রতিনিধি, আদিবাসী নেতা রয়েছেন সামনের সারিতে।
অভিযোগ রয়েছে, কতিপয় বন কর্মকর্তার অনিয়ম, দুর্নীতির কারণে প্রভাবশালীরা বনভূমি দখল করার সুযোগ পেয়েছে। প্রভাবশালীদের সঙ্গে যোগসাজশ করে বন বিভাগের কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী সামাজিক বনায়নের নামে জমি দখলে সহযোগিতা করেছে। অভিযোগ আংশিক স্বীকার করে বনবিভাগের সাবেক এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘মধুপুর বনের জমি দখল প্রক্রিয়া এক সময় প্রথা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। অনেকেই এ বন থেকে সুবিধা পেয়েছে। বন বিভাগের সবাই যদি শুরু থেকে সত্যি নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতো তাহলে হয়তো মধুপুর বন ধ্বংসের পথে যেতো না।’ তিনি জানান, জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ভূমির চাহিদা বাড়ে। তখন দখলকারিরা তাদের বসতবাড়ি এবং কৃষি জমি অবৈধভাবে স¤প্রসারণ করতে থাকে। বনের ভেতর বসবাসকারী গরীব মানুষ কিছু জায়গা দখল করলেও প্রভাবশালী মহল শত শত একর বনভূমি দখল করে নেয়।
মধূপুর উপজেলার কুড়াগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক বলেন, প্রভাবশালীদের নামে-বেনামে বনভূমি দখল হয়েছে বেশি। সামাজিক বনায়নের নামেও অনেক জায়গা দখল হয়েছে। বনবিভাগের দোখলা রেঞ্জ অফিসার আব্দুল আহাদ বলেন, আদিবাসীদের এক অংশ তাদের বাড়ির আশপাশের জঙ্গল কেটে সেখানে আবাদ শুরু করে। পরবর্তীতে সেই জায়গা দখলে নিয়ে অন্যের কাছে লিজ দেয়। এক সময় ওই জায়গা বেদখল হয়ে যায়। দোখলা রেঞ্জের প্রায় সাড়ে ১৯ হাজার একরের মধ্যে ১২ হাজার একরের উপরে দখল হয়ে গেছে। বিপুল পরিমাণ বেদখল হওয়া ভূমি উদ্ধারের উদ্যোগ নেয়া হলে দখলদাররা লোকজন নিয়ে আন্দোলন শুরু করে। এমনকি রেঞ্জ অফিসে হামলা ও ভাংচুর করাও হয়। আদবাসীদের সামনে রেখে প্রভাবশালী দখলদাররা এসব আন্দোলন করে থাকে।
মধুপুর জয়েনশাহী আদিবাসী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ইউজিন নকরেক বলেন, মধুপুরে বনের বেশির ভাগ জমি আদিবাসীদের। পৈতৃক সূত্রে তারা জমির মালিক হয়েছেন। সে সব জমিতে আবাদ করতে হলে যে পরিমাণ অর্থ প্রয়োজন তা আদিবাসীদের নেই। তাই তারা নিজেদের জমি স্থানীয় অর্থশালীদের কাছে লিজ দেয়। তবে প্রভাবশালীদের দখলে অনেক জায়গা রয়েছে। কিন্তু বনবিভাগ সেগুলো উদ্ধার করতে কোন অভিযান চালায় না। তার এ অভিযোগ সত্য নয় উল্লেখ করে টাঙ্গাইলের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক বলেন, সম্প্রতি ১৫৭ একর জায়গা উদ্ধার করা হয়েছে। এর বেশির ভাগ জায়গাই স্থানীয় বাঙালিদের। তিনি বলেন, আদিবাসীদের দখলে জায়গা থাকলে কোন সমস্যা নেই। কিন্তু তারা অন্যদের কাছে জায়গা লিজ দিচ্ছে। পরবর্তীতে সেই জায়গা প্রভাবশালীদের দখলে চলে যাচ্ছে। আর দখলকৃত জায়গা উদ্ধার করতে গেলেই নানাভাবে প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হচ্ছে। বনবিভাগের কিছু কর্মকর্তা দখল প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত থাকা প্রসঙ্গে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক বলেন, এখন আর সে সুযোগ নেই। এখন সবাই সচেতন। বন কর্মকর্তাদের কেউ দখল প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত থাকলে তা প্রকাশ পাবেই। তখন তার বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews