1. admin@amadertangail24.com : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. aminulislamkobi95@gmail.com : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. anowar183617@gmail.com : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. smariful81@gmail.com : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. arnobalamin1@gmail.com : arnob alamin : arnob alamin
  6. dms09bd@yahoo.com : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. kplithy@gmail.com : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. hasankhan0190@gmail.com : md hasanuzzaman : md hasanuzzaman Khan
  9. monirhasantng@gmail.com : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. muslimuddin@gmail.com : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. sayonsd4@gmail.com : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. sheful05@gmail.com : sheful : Habibullah Sheful
যে ইসলামি সংগঠনকে সন্ত্রাসী তালিকা থেকে বাদ দিল যুক্তরাষ্ট্র - Amader Tangail 24
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
বাসাইলে ৪৯ কেজি গাঁজাসহ চারজন গ্রেফতার ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন কালিহাতীতে মনোনয়ন জমা দিলেন যারা বাসাইলে প্রাণীসম্পদ প্রদর্শণী অনুষ্ঠিত সখিপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির ঈদপূনর্মিলনী বাতিঘর আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে উচ্চশিক্ষা বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত বাসাইলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন টাঙ্গাইলে সৃষ্টি একাডেমিক ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত বাসাইলে ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত উল্লাপাড়ায় ২ দিনব্যাপী মানবধর্ম মেলার উদ্বোধন  নাগরপুরে ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বাঙ্গালী সংস্কৃতি জাগ্রত হলে অসাম্প্রদায়িক চেতনা জাগ্রত হবে নাগরপুরে মঙ্গল শোভাযাত্রা উদ্বোধনের সময় বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী বাসাইলে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত আমাদের মূল লক্ষ্যই হলো হস্ত ও কুটির শিল্পকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া- বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী সখিপুরে একই মাতৃগর্ভে ৬ সন্তান সখিপুর উপজেলা হাসপাতালে সেবা নিতে আসা রোগীদের ঈদ আনন্দ

যে ইসলামি সংগঠনকে সন্ত্রাসী তালিকা থেকে বাদ দিল যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • প্রকাশ : শনিবার, ৭ নভেম্বর, ২০২০
  • ৬২৩ ভিউ
জিনজিয়াং অঞ্চলে হামলার জন্য চীন বিচ্ছিন্নতাবাদী পূর্ব তুর্কিস্তান ইসলামী আন্দোলনকে দোষ দিয়েছে, যেখানে অনেক মুসলিম উইঘুর হান চীনা জনগণের উপস্থিতিতে অসন্তুষ্ট [কার্লোস ব্যারিয়া / রয়টার্স]

ইস্ট তুর্কিস্তান ইসলামি মুভমেন্টকে (ইটিআইএম) সন্ত্রাসী তালিকা থেকে বাদ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। জিনজিয়ানে সংখ্যালঘু মুসলমানদের ওপর চীনের চালানো ভয়াবহ নৃশংসতাকে ন্যায্যতা দিতে ইটিআইএম’কে বরাবরই দোষারোপ করে আসছে বেইজিং।

মার্কিন ফেডারেল রেজিস্টার নতুন একটি নোটিশ জারি করেছে। এতে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য নতুন নিয়মনীতি তুলে ধরা হয়। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ইটিআইএম’কে সন্ত্রাসী তালিকা থেকে বাদ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, ইটিআইএম’কে সন্ত্রাসী তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। কারণ এক দশকেরও বেশি সময় ধরে তাদের অস্তিত্বের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের অংশ হিসেবে এবং চীনবিরোধী কর্মকাণ্ডের কারণে ২০০৪ সালে জর্জ ডব্লিউ বুশ প্রশাসন ইটিআইএম ছাড়াও তুর্কিস্তান ইসলামিক পার্টিকে কালো তালিকাভুক্ত করেছিল।

জিনজিয়ানে চীনের বর্বরতার পক্ষে সাফাই দেয়ার জন্য বরাবরই ইটিআইএমকে দোষারোপ করছে বেইজিং। মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে, জিনজিয়ানের আটক কেন্দ্রে ১০ লাখের বেশি মানুষকে বন্দি করেছে শি জিনপিং প্রশাসন। যাদের অধিকাংশ সংখ্যালঘু উইঘুর এবং তুর্কি ভাষি মুসলমান।

জিনজিয়ানকে পূর্ব তুর্কিস্তান বলে ইটিআইএম-এর সদস্যরা। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, চীন কিছু প্রমাণ হাজির করেছে। যাতে বলা হয়েছে ইটিআইএম একটি সংঘবদ্ধগোষ্ঠী। জিনিজিয়ানে হামলার জন্য তাদের দায়ী করা হয়।

ওয়াশিংটন ভিত্তিক উইঘুর হিউম্যান রাইটস প্রজেক্ট মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত ‘বিলম্বিত সফলতা’ আখ্যা দিয়েছে। বলেছে, ইটিআইএমের বিরুদ্ধে চীনের তোলা অভিযোগ সরাসরি প্রত্যখ্যান মার্কিন এ সিদ্ধান্ত।

সংগঠনের নির্বাহী পরিচালক ওমের ক্যানাত বলেন, ইটিআইএম-এর কাল্পনিক হুমকি মোকাবিলার দোহাই দিয়ে গেল ২০ বছর ধরে উইঘুরদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালিয়ে যাচ্ছে চীনা কর্তৃপক্ষ।

মার্কিন সিদ্ধান্তে তীব্র নাখোশ এবং কঠোর বিরোধিতা করেছে চীন। শুক্রবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদবিরোধী লড়াইয়ে সহায়তা থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে পিছু না হটার আহ্বান জানান।

জিনজিয়ানে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় চীন কয়েক দশক চেষ্টা করেছে। এর অংশ হিসেবে উইঘুরদের বিরুদ্ধে নৃশংতা পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হয়। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে হামলার ঘটনা ঘটে। তারপর থেকে কথিত সন্ত্রাসবাদের জন্য ধর্মীয় কঠোর অনুশাসনকে দায়ী করতে থাকে ওয়াশিংটন। বলা হয়, উইঘুরের তরুণ চরম উগ্রপন্থার দিকে ঝুঁকছে।

‘শতাব্দীর কলঙ্ক’

সন্ত্রাসী হামলায় ইটিআইএম’র ভূমিকা নিয়ে বিশ্লেষকরা সন্দিহান। চীন ধারাবাহিকভাবে কয়েকটি হামলার শিকার হয়েছে। যার জন্য উইঘুরের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দায়ী করছে চীনা কর্তৃপক্ষ।

২০১৪ সালে দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলীয় শহর কুমিংয়ে ট্রেনে ছুরি হামলায় ৩১ যাত্রী নিহত হয়। জিনজিয়ানের উরুমকিতে ২০০৯ সালে সংখ্যাগরিষ্ঠ হানগোষ্ঠীকে লক্ষ্য করে শুরু হওয়া দাঙ্গায় শতাধিক মানুষ নিহত হয়।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, চীনা কর্তৃপক্ষ উইঘুরদের ইসলামি রীতিনীতি ত্যাগে বাধ্য করছে। তাদেরকে জোরপূর্বক সমাজতন্ত্রের দীক্ষা দেয়া হচ্ছে।

এর আগে পম্পেও চীনের গণগ্রেফতারকে ‘শতাব্দীর কলঙ্ক’ বলে আখ্যা দেন। উইঘুরদের বিরুদ্ধে চীনা বর্বরতাকে গণহত্যা আখ্যা দেয়ার দাবিও জানান বেশ কয়েকজন মার্কিন সিনেটর।

তথ্যসূত্র: আলজাজিরা

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews