1. [email protected] : md Hasanuzzaman khan : The Bengali Online Newspaper in Tangail News Tangail
  2. [email protected] : Aminul islam kobi : Aminul islam kobi
  3. [email protected] : Anowar pasha : Anowar pasha
  4. [email protected] : ArifulIslam : Ariful Islam
  5. [email protected] : arnob alamin : arnob alamin
  6. [email protected] : dm.shamimsumon : dm shamim sumon
  7. [email protected] : Lithy : Khorshida Parvin Lithy
  8. [email protected] : HM Maruf Ahmmed : HM Maruf Ahmmed
  9. [email protected] : MD. MONIR HASAN : MD. MONIR HASAN
  10. [email protected] : MuslimUddin Ahmed : MuslimUddin Ahmed
  11. [email protected] : Sahadev Sutradhar Sayon : Sahadev Sutradhar Sayon
  12. [email protected] : sheful : Habibullah Sheful
রম্য ছোট গল্প - পাশের বাসার মেয়ে - Tangail News
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
সখিপুরে ৪টি সড়কের কাজ উদ্বোধন করলেন এমপি জোয়াহের টাঙ্গাইলে বাস-ট্রাক-কাভার্ডভ্যানের সংঘ‌র্ষে নিহত ৩ টিভিতে আজকে খেলা আইয়ার ও ত্রিপাঠি ঝড়ে উড়ে গেল মুম্বাই পেটব্যথা কমানোর প্রাকৃতিক উপায় কালিহাতী উপজেলা প্রকৌশল শ্রমিক ইউনিয়ন সভাপতি মাে. আব্দুল জলিল সাধারণ সম্পাদক হাসমত আলী মধুপুরে স্কুলছাত্রীকে শ্লীলতাহানী, বিচার দাবিতে মানববন্ধন টিভিতে আজকে খেলা গোপালপুরে বালির মোকাম উচ্ছেদ ও ৩জনকে কারাদন্ড কালিহাতীতে অজ্ঞাত ট্রাকের চাপায় প্রাণ হারালেন অজ্ঞাত বৃদ্ধ পিএসজির নাটকীয় জয়ে নায়ক হাকিমি গোপালপুর পৌরকর নীতিনির্ধারণে পৌরবাসীর মতবিনিময় সভা কাদের সিদ্দিকীর রোগমুক্তির জন্য বাসাইলে দোয়া মাহফিল টিভিতে আজকে খেলা ৫০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরি করেন ভারত পাল

রম্য ছোট গল্প – পাশের বাসার মেয়ে

আখতার বানু শেফালি
  • প্রকাশ : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০
  • ১৮৩১ ভিউ
রম্য ছোট গল্প - পাশের বাসার মেয়ে। লেখকঃ আখতার বানু শেফালি
Spread the love

রম্য ছোট গল্প – পাশের বাসার মেয়ে

লেখকঃ আখতার বানু শেফালি
আশ্চর্য মেয়েরা ঝগড়াটে হয় শুনেছিলো ফয়সাল।কিন্তু তাদের পাশের বাসার মেয়ে দীনার মতো যে একটা ঝগড়াটে মেয়েও থাকতে পারে পৃথিবীতে তা জানা ছিলো না ফয়সালের। আর মা কিনা সেই মেয়ের সাথে তার বিয়ে দিলো? অনেকে বলে মানুষ নাকি মানুষকে বশ করে একথা আগে বিশ্বাস করতো না ফয়সাল কিন্তু এখন করে। ফয়সালের মা যেদিন প্রথম ঐ বাসায় বেড়াতে গেছে সেইদিনই ঐ মেয়ে আগেই কোন তুকতাক করে রেখেছিলো তাই দিয়ে মাকে বশ করেছে। যার কারণে মা বাসায় এসেই তার প্রশংসা গাওয়া শুরু করলো।পরদিন গিয়ে মেয়েকে আংটিও পড়িয়ে এলো। ফয়সালদের নিজের বাড়ী বিল্ডার্সকে দেওয়ায় ওরা কিছু দিন যাবত পাশের বাসার মেয়ের পাশের এই ভাড়া বাড়ীতে উঠেছে।
ফয়সাল কতো বললো — মা ঐ মেয়ের সাথে আমার আড়ি চলছে, তাকে তুমি আমার বউ করার জন্য আংটি পড়াতে পারো না। মা উল্টা বলছে তোমাকে আমি চিনি তুমি ঝগড়াঝাটি করার ওস্তাদ। তুমি একটা ঝগড়াটে ছেলে। তোমার সাথে ঝগড়া করে কেউ পারবে নাকি?নিজের আপন মা যদি এমন কথা বলে তবে পরের মেয়ে তো বলবেই। আপনারা কোনদিন শুনেছেন আড়ি চলছে সেই মেয়ের সাথে কারো বিয়ে হয়? কিন্তু আমার মা সেই কাজটি করে দেখালেন। এখন আমার বউ বড়লোকের মেয়ে দীনা আর আমি বসে আছি বাসর ঘরে উল্টো দিকে মুখ করে।
আমি মনে করতাম আমার মা একজন আদর্শ মহিলা
এখন দেখছি ভিতরে ভিতরে অনেক লোভী। দীনা বড়লোকের মেয়ে বলে মার লোভ জেগে উঠেছে। বড়লোক ভাইয়ের মেয়েকে দিয়ে বিয়ে করাতে পারে নাই, এখন লোভ পড়ছে পাশের বাসার বড়লোকের মেয়ের প্রতি।
আমার যার সাথে নাকি পরিচয় হয়েছিল ঝগড়া দিয়ে তার সাথে কি মিল হতে পারে?
বাবাকে বললাম, বাবা তুমি একটা কিছু করো আমার জন্য, দেখি বাবাও অন্য সময় মার দলে না থাকলেও এখন পুরোপুরি মার দলে। বাবা পাশের বাড়ীর মেয়ের বাবার সাথে একদিন বাসার সামনে কথা বলেই নাকি বুঝতে পেরেছে পাশের বাসার বাবার মেয়েটা খুব ভালো হবে। আমি তো মাকে বলতেও পারছি না যে পাশের বাসার আংকেলের সাথে আমি বাবাকে একদিন হাউজি খেলতে ক্লাবে যেতে দেখেছি।
দুইতিন মাসের টাকা জমিয়ে একটা ক্যাননের ৫০মেগা পিক্সেলের ক্যামেরা কিনে অফিস থেকে এসে ছাদে উঠেছি। একটা সূর্যাস্তের ছবি তুলবো বলে, যতোবার ছবি তুলতে যাই সে ক্যামেরার সামনে এসে দাঁড়ায়। আমি আমাদের ছাদের শেষ মাথায় আমার অপজিটে সে তাদের ছাদের শেষ মাথায়। যতো হাত দিয়ে ইশারা করে বলছি সাইড দিতে সে আরো সামনে এসে দাঁড়ায়। অবশেষে জোরে জোরে বললাম, — আপু একটু সরে দাঁড়ান না,আমি একটা সূর্যাস্তের ছবি নিবো। অমনি সে মেয়ে ফোঁস করে উঠলো– কে আপনার আপু? আমি আপনার মতো একটা বয়স্ক লোকের আপু হতে যাবো কেন? বললাম ঠিক আছে আপনি আমার বড় না ছোট বোনের মতো একটু সরে দাঁড়ান আমি একটা ছবি নিবো সে আমাকে এমন সব কথা বলতে বলতে নীচে চলে গেলো যে তার কথায় আমি শোকে পাথর হয়ে গেলাম, সে বলছে— সব ভাড়াটিয়াদের একই স্বভাব বিকালে ছাদে উঠে হাওয়া না খেলে যেন ভাড়ার টাকা উসুল হয়না তাদের। আর নতুন ক্যামেরা কিনেছে দেখাতে তো হবে? আরো বলছে, —-আমি আমার ছাদে যেখানে ইচ্ছে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকবো আপনি সরে দাঁড়ান বলার কে?নিজেদের ছাদ না থাকলে ভাড়া বাসায় থাকলে সূর্যাস্তের ছবি তোলার সাধ তো জাগবেই। বুঝুন ঠেলা।
আমি ক্যামেরা হাতে চুপ করে দাঁড়িয়ে রইলাম কতক্ষণ। আমি ভেবেছিলাম আমার মামাতো বোন মিরুর চাইতে ঝগড়াটে মেয়ে মনে হয় এজগতে আর নাই এতো দেখি মিরুর উস্তাদ। মিরু আমার মাস্টার্স পরীক্ষা শেষ হওয়ার কিছু দিন পর কলেজের এক অনুষ্ঠানে পাশাপাশি বসে এক কথায় খামচা মেরে আমার ভুরুর চুল তুলে নিয়েছিলো,আমি একটু ব্যথা পেয়েছিলাম তবে চুল সহ যে উঠিয়ে ফেলছে বুঝি নাই।সকালে ঘুম থেকে উঠে মার সামনে আসতেই মা বললো, এদিকে আয়তো তোর ভুরুতে কি হয়েছে? ভুরুতে চুল নাই কেন? আমি দৌড়ে আয়নার সামনে গিয়ে দেখি যে কথা সেই কাজ আামার ডান ভুরুতে মাঝ খানে চুল নাই। আমি মার কাছে দৌড়ে এলাম মা চিন্তা করে দেখেছো মিরু খামছি দিয়ে আমার ভুরুর চুল উঠিয়ে নিয়েছে, আর তুমি স্বপ্ন দেখছো মিরুর সাথে আমার বিয়ে দিবা? মা বললেন কি হয়েছিলো যে সে এই কাজ করেছে? বাড়িয়ে কমিয়ে বলবি না ঠিকঠাক মতো বলবি।
মা কাল মিরু ফোন দিলো না যে কলেজে যেতে কলেজ একজন বাউল এসেছে, গানের আসর করবে।
হ্যা আমিতো বললাম ঘরে বসে না থেকে মিরুর সাথে সময় কাটিয়ে আয়।
সেইতে তুমি বলাতেই তো আমি গেলাম, কলেজে ঢুকতেই এক বন্ধুর সাথে দেখা, ওর সাথে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে কথা টথা বলতেছি, মিরু আমাকে দুর থেকে ডাকতেছে, ফয়সা, ঐ ফয়সা,বলো আমার নাম নাকি ফয়সা?
হ্যা বল তারপর?
তারপর আমি কাছে গিয়ে বলছি ফয়সা ফয়সা করছিস কেন? সে বলে কি শুনবা?
বল তাড়াতাড়ি বল!
সে বলে তোর নামের যে ছিরি, বিয়ের পর ছোট করে ডাকতে গেলে শুধু ফয় তো আর বলা যাবে না ফয়সা বলতে হবে,তাই আগে ভাগে একটু প্রাকটিস করলাম । আমি বললাম বিয়ের পর নাম ধরেই ডাকতে হবে এমন তো কোন কথা নাই, আমার মা তো বাবাকে নাম ধরে ডাকে না। সে বলে তার মানে আমি সেকেলে মানুষদের মতো ওগো, তুমি ডাকবো তোকে?
তারপর বল। আমার মা ধৈর্য হারা।
এতো বাজে করে সেজে গুজে এসেছে না মা ? ব্লাউজের পিঠে শুধু ফিতা বাঁধা, মাথার চুল কেটেছে একদম বয়কাট, পুরা পিঠ দেখা যাচ্ছে। আমি বলছি এতো বাজে করে সেজে এসছিস কেন? অমনি এমন একটা খামচা মেরেছে না মাথার চুলে ওটা ফসকে এসে ভুরুতে লাগলো,আর ভুরুতে লেগে এই দশা।
মা সাথে সাথে ফোন লাগলো, শুনে মিরু হাসতে হাসতে বাঁচে না,বলে ফুপি আমি ওর চুলে ধরে একটু আদর করতে গেছিলাম ওর চুল তো অনেক সিল্কি আর আমার নোখ তো বড় বড় তো ছুটে এসে ওর ভুরুতে লেগেছে,ভুরুর চুল অল্পকদিনে গজিয়ে যাবে তুমি চিন্তা করো না। ব্যস বাদ পড়ে গেলো মিরু। আমার অবশ্য কিছু দিন পরই ভুরু গজিয়েছে। কয়দিন মার একটা পুরানো আই ব্রাউ পেন্সিল দিয়ে একটু এঁকে রাখতে হয়েছিলো আর কি।
অতএব মার আমাকে ছোট বেলা থেকে দেখা ভাইয়ের মেয়ে মিরুকে দিয়ে বিয়ে করানোর স্বপ্ন টুটে গেলো। মিরু এখন মস্ত বড়লোকের বউ, মাঝে মাঝে সে গাড়ী থেকে আমাকে দেখলে তার ফর্সা হাত বের করে হাত নেড়ে বাই বাই টা টা জানায় হেসে হেসে।
যে মেয়ের সাথে দেখা হলেই আমার ঝগড়া বাঁধে সেই মেয়ে মার মন কেমনে এভাবে জয় করলো আমি ভেবে পাই না। সে নাকি আমার মাকে তার এতো ভালো লেগেছে এইজন্য আমাকে বিয়ে করেছে সে নাকি জানতো না আমি এমন ভালো মায়ের একটি এমন খারাপ ছেলে।
একদিন অফিসে যাবো আমার অনেক তারা, দরজা খুলে দেখি দীনাদের বাসার সামনে একটা রিক্সা আসতেছে। আমি এই রিক্সা বলে ডাকতেই আমাদের বাসা আর দীনাদের বাসার সীমানা প্রচীর বরাবর দাঁড়িয়ে গেলো রিক্সা। রিক্সা দাঁড়াতেই দেখি বই খাতা হাতে দীনা ধেয়ে আসছে রিক্সার দিকে। আমিও দৌড়ে গিয়ে রিক্সায় উঠবো, এমন সময় বাঁধা দিলো দীনা। আরে আরে আপনি রিক্সায় উঠছেন কেন? আমি ডাকলাম রিক্সা। আমি বললাম কখখনো না আমি ডেকেছি আগে । অসম্ভব আমি আগে ডেকেছি। রিক্সা ওয়ালা বললো আপনারা দুইজনে একসাথে ডাক দিয়েছেন,কোথায় যাবেন উঠেন আমি আপনাদের দুজনকেই নামিয়ে দেই। আমি জানি এই সময়ে আর রিক্সা পাওয়া যাবে না, এই রিক্সা ছেড়ে দিলে আজ নির্ঘাৎ বসের ঝাড়ি খেতে হবে, তাই রিক্সা ওয়ালার কথাটা আমার পছন্দ হলো। আর মেয়েদের কলেজ তো আমার অফিসের রাস্তায়ই পরে।
সে মেয়ে গগন বিদারী এক চিৎকার দিলো রিক্সা ওয়ালার উদ্দেশ্যে বললো,
—কি বললেন আপনি আমি এই নাদান লোকের সাথে যাবো, কখনো না।
রিক্সা ওয়ালা আমার মুখের দিকে তাকিয়ে বির বির করে বলছে,
— না দা ন কি ?
–আমার টিউটোরিয়াল আছে, মহিলা কলেজে যান, বলে লাফ দিয়ে রিক্সায় উঠে বসলো সে। আমি রিক্সা টেনে ধরলাম।
রিক্সা ওয়ালা বললো,নামেন আপনি আমি আপনাদের দুইজনের একজনকেও নিবো না। এবার আমি ও লাফ দিয়ে রিক্সায় উঠে বসে বিনয় করে সামনে এগিয়ে যেতে বললাম রিকশা ওয়ালাকে।
রিক্সা এগিয়ে যাচ্ছে, আমরা দুজনে উত্তর দক্ষিণে মুখ করে রিক্সায় বসে আছি । রিক্সা মেয়েটার কলেজের গেটে আসতেই সে লাফ দিয়ে রিক্সা থেকে নেমে পড়লো।নেমে ব্যাগ থেকে ৫০টাকার নোট বের করে এগিয়ে দিলো রিক্সা ওয়ালার দিকে। রিক্সা ওয়ালা বললো,—- আমার কাছে ভাঙা নাই আপু। আপনাকে ভাঙা টাকা ফেরত দিতে হবে না,উনার কাছে থেকেও পঞ্চাশ টাকা নিবেন, মনে থাকে যেন। মার কাছ থেকে আসা যাওয়ার জন্য পঞ্চাশ টাকা নিয়ে বেড়িয়েছিলাম । এক ক্যামেরা কিনে পকেট খালি।এর মধ্যে এই মেয়ে বলে কি? তার মানে বাসায় ফিরে আবার জবাবদিহি করে মার কাছ থেকে টাকা নিতে হবে ? আমি বললাম, মানে এখান থেকে আমার অফিসের ভাড়া পাঁচ টাকাও না। দীনা বললো আপনি রিকশা ওয়ালাকে পঞ্চাশ টাকা দিচ্ছেন কিনা জানতে চাই,না হলে আপনাকে এখানেই নামতে বাধ্য করবো। ওরে আল্লাহ মহিলা কলেজের সামনে বলে কথা, আমি রিকশা ওয়ালাকে তাড়া দেই তাড়াতাড়ি সামনে চল।
সেই মেয়ের সাথে মা বিয়ে দিয়ে দিলো।
বৌ সাজে দীনাকে খুব সুন্দর লাগছে বলে একটু কাছে এগিয়ে গিয়েছিলাম, একটু কাছ ঘেঁষে বসেওছিলাম। ভেবেছিলাম আগের সব ঝগড়াঝাটি হয়তো ভুলে গেছে। সে বলে কিনা এতো কাছে আসছেন কেন? দুরে সরে বসুন। তারপর থেকে চুপ করে দুরে সরে বসে রয়েছি আমি ফয়সাল। কতক্ষণ এভাবে বসে থাকবো? দরজা খুলে বেড়িয়ে এলাম। খাবার ঘরে আলো জ্বলছে দেখে এগিয়ে গেলাম, এক গ্লাস পানি খাবো বলে। খাওয়ার ঘরে ঢুকতেই মার কাছে ধরা খেয়ে গেলাম,মা খাওয়ার টেবিলে বসে বই পড়ছেন। এই মহিলার জীবনী শক্তি দেখে অবাক হয়ে যাই আমি । বিয়ের এতো ঝায় ঝামেলা শেষ করে এখন আবার গল্পের বই পড়ছেন। আমাকে দেখেই রে রে করে উঠলেন, আর পানি কি খাবো?তোর ঘরে পানি দেওয়া আছে তুই পানির জন্য এখানে এসেছিস যে?
—পানিতো মা ওর কাছে।
— ওর কাছে মানে?
— মানে দীনা খাটের যে দিকে বসে আছে ঐ দিকে।
—- তার মানে কি? দাীনার ঐ দিকে থাকলে তুই পানি খাবি না?
—- মা তোমাকে আগেই বলেছিলাম, অনেক ঝগড়াটে মেয়ে শুনলে তো না আমার কথা। সুন্দর লাগছে বলে একটু কাছে এগিয়ে গিয়েছিলাম, বলে দুরে সরে বসুন। এখন খাটে শুয়ে ঘুমাবো তাও ভয় পাচ্ছি।
মা ফয়সালের হাত ধরে বললেন চল শুনি কি হয়েছে? ফয়সাল না করলেও মা শুনলো না, তাকে হাত ধরে হির হির করে ঘরে নিয়ে এলো।
মা ঘরে ঢুকে দীনার কাছে এগিয়ে গেলো, সে তখন হাঁটুতে মুখ গুজে আছে,মা কাছে গিয়ে আদর করে কি হয়েছে দীনা? বলতেই সে উঠে মাকে জড়িয়ে ধরে কান্না , আমি ভয় পেয়ে দুরে সরে দাঁড়ালাম, কি বলে ফাঁসিয়ে দেয় কে জানে? সে মার বুকে পড়ে কাঁদতে লাগলো। মা বললেন বলবে তো কি হয়েছে? সে কাঁদতে কাঁদতে বললো, মা যা বলছে তা নাকি ঠিক নয় আমি নাকি খুবই ভালো ছেলে, সেই নাকি খারাপ আর ঝগড়াটে মেয়ে। আম্মা তাকে শিখিয়ে দিয়েছেন বাসর রাতে থেকেই সে যেন আমাকে ঝাড়ির উপর রাখে। আম্মা আমার আব্বাকে বিয়ের প্রথম রাতে থেকে ঝাড়ির উপর রাখে নাই বলে নাকি আব্বাকে আম্মা সারা জীবনে বাগে আনতে পারে নাই।
কিন্তু আমি জানি আমার আব্বা একজন নীরিহ গোবেচারা মানুষ। আমার আম্মার কথার বাইরে এক পাও ফেলেন না।
আমি তো অবাক, কি বলে এসব। সে বলছে,
— আন্টি আপনি প্রথম দিন দেখা হতেই আমাকে বলেছিলেন না? আপনার ছেলে খুব ঝগড়াটে, আমি যেন বুঝেশুনে চলি তাকে পাত্তা না দেই?
মা বললেন,
—- হ্যা বলেছিলাম তো, সেটাতো অনেক আগে এই বাসায় যখন প্রথম এলাম তখন। তখনতো আমি ওকে আমার ভাইয়ের মেয়ে মিরুর সাথে বিয়ে দিতে চেয়েছিলাম, ও যাতে তোমার প্রেমে না পড়ে এইজন্য বলেছিলাম।
—- কিন্তু আন্টি আমি তো প্রথম দেখাতেই আপনার ছেলের প্রেমে পড়ে যাই। আর তারপরেও আপনি আমার শ্বাশুড়ি হবেন মনে করে আপনার কথা মানতে গিয়ে তার সাথে কতো ঝগড়াই না করেছি আমি।
মা বললেন,
— সে ঠিক আছে, এখন কি হলো?
আন্টি আংটি পড়ানোর দিন আমার মা আর আপনি বললেেন না , মেয়েদের বিয়ের রাত থেকে শক্ত থাকা উচিত,  আমি সেই কথা মনে করে দুরে সরে বসতে বলেছি ওকে বেচারা টু শব্দ না করে দুরে বসে ছিলো।
মা বললেন,
——ভালো করেছো বিয়ের রাতে বিড়াল মেরেছো।
দীনা বললো,
—-কিন্তু আন্টি আমি যাতোদুর জানি বিড়াল তো মারে ছেলেরা।
কিন্তু আমার ছেলের মতো ত্যাদোর ছেলের জন্য বউ এর উচিত আগে বিড়াল মারা।
দীনা দৌড়ে এসে আমার হাত ধরে বললো, না আন্টি আমিই আপনার কথায় ভুল করেছি সে অনেক ভালো মানুষ।
আমি আম্মাকে বলি– হু হু দেখছো তোমার ট্রেনিং ফেল, তোমার পাশের বাসার মেয়ে তোমার আদরের বৌমা দীনার প্রেমের কাছে।
মা বললেন দীনা তোমার প্রেমে পড়ার আগেই আমি মনে মনে দীনাকে তোমার জন্য ঠিক করে রেখেছিলাম। দীনা বললো তা ঠিক, এইজন্যই তো আমি আপনাদের দুজনকে খুশী করতে গিয়ে সব তালগোল পাকিয়ে ফেলেছিলাম।
**************সমাপ্ত ********************

নিউজটি সোস্যালমিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2021
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!